বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ০৯ জানুয়ারী, ২০১৮, ০৭:২০:১৯

সীমান্তে অপরাধ বন্ধে ডিজিটাল বর্ডার তৈরি করা হবে

সীমান্তে অপরাধ বন্ধে ডিজিটাল বর্ডার তৈরি করা হবে

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন বলেছেন, সীমান্তে চোরাচালান,সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও মানুষ হত্যার ঘটনা আর যাতে না ঘটে সে জন্য বিজিবি-বিএসএফ যৌথভাবে ডিজিটাল বর্ডার ম্যানেজমেন্ট ব্যবস্থা চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরের দিকে সীমান্তবর্তী লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার বাউরা জমগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় দুস্থ অসহায় শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ কালে তিনি এসব কথা বলেন।
মহাপরিচালক আরো বলেন, পর্যায়ক্রমে দেশের সব সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ডিজিটাল স্মার্ট বর্ডার ম্যানেজমেন্ট চালু করার কাজ চলছে। মানবতা বাংলাদেশের মানুষের মজ্জাগত। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্বর কাছে বাংলাদেশ প্রমান করেছে এ দেশের মানুষ কতটা মানবিক।  

সীমান্ত পথে চোরাচালান ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড শুধু ভারত-বাংলাদেশের একক কোনো সমস্যা নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন,  সারা বিশ্বেই এধরণের সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধানে উভয় দেশের ডিজি পর্যায়ে আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। ’   

বিজিবির জনবল সংকটের বিষয়ে মেজর জেনারেল আবুল হোসেন আরও বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ইতোমধ্যে জনবল নিয়োগের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। যেসব সীমান্তে বিজিবির ক্যাম্প নেই, সেসব সীমান্তে ক্যাম্প নির্মাণ ও যৌথ সীমান্ত টহল সহজ করতে রাস্তা নির্মাণের বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে বর্তমানে বিজিবি-বিএসএফের মধ্যে এক চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে। ফলে সীমান্তে হত্যা কমেছে। তবে সীমান্ত হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনতে বিজিবি ও বিএসএফের উ”চ পর্যায়ে আলোচনা চলছে। কিছু দিনের মধ্যেই সীমান্ত হত্যা আর যাতে না ঘটে, সেজন্য বিএসএফ কাজ করছে।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রংপুর আঞ্চলিক কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম সাইফুল ইসলাম, রংপুর-৭বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক লে. কর্নেল মোঃ মাহফুজ উল বারী, লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক শফিউল আরিফ, পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর কুতুবুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এনএম নাসির উদ্দিন, বাউরা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বসুনীয়াসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
এ সময় ৫ শতাধিক অসহায় লোকজনকে কম্বল ও তিনশতাধিক লোকজনকে সোয়েটার প্রদান করা হয়।   

 

আজকের প্রশ্ন

শিক্ষা অধিদফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহনীয় মাত্রায় ঘুষ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। জাতির জন্য এমন পরামর্শ ভয়ানক নয় কি?