বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

রবিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০১৮, ০১:৩৮:০৯

সুখী দম্পতির ৭টি রহস্য!

সুখী দম্পতির ৭টি রহস্য!

লাইফস্টাইল ডেস্ক : দাম্পত্য জীবনে ঝগড়া, খুনসুটি হবে। তাই বলে কি তাদের অসুখী বলা যাবে? সংসার জীবনের ২০ টি বছর কাটিয়ে দেবার পরও অনেকেই নিজেদেরকে সুখী দম্পতি হিসেবে দাবী করতে পারে না। তবে কি সুখী হওয়া এতটাই কঠিন? “আপনারা সুখী দম্পতি কিনা তা কত টাকা আপনার আছে বা কত ভালবাসেন নিজেদেরকে এমনকি আপনাদের ব্যক্তিত্বের ওপর নির্ভর করে না”- এমন ধারণা দিয়ে থাকেন দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়া কিছু বিষয়ের ওপর নির্ভর করে।

১। অহেতুক ঝগড়া

“ঝগড়া না করে কথা বলে সমাধান করার চেষ্টা করুন”  ঝগড়া কোন সমস্যার সমাধান হতে পারে না। অপরজনের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝার চেষ্টা করুন। সঙ্গীর মতামতকে গুরুত্ব দিন।

২। মনোযোগ দিয়ে কথা শুনুন

অসুখী দম্পতি একজন আরেক জনের কথা শোনা থেকে বিরত থাকে। বরং তারা একজন আরেকজনের কথার ভুল ধরে, সমালোচনা করে থাকে। এতে একজন আরেকজনের প্রতি সম্মান হারায়। অপরদিকে একজন সুখী দম্পতি একে অপরে কথা শুনে এবং বোঝার চেষ্টা করে।

৩। একসাথে সময় কাটান

দিনের কিছুটা সময় একসাথে কাটান। তা হতে পারে বাচ্চাদের সাথে এক সাথে খেলা করে বা পোষা প্রাণীটিকে সাথে নিয়ে ঘুরতে যেয়ে। কিংবা কিছুক্ষণ গল্প করে নিজেরা সময় কাটাতে আপ্রেন।

৪। আলদা রুম

বাড়িতে একটি রুম আলাদা রাখুন। নিজেদের মধ্যে যখন ঝগড়া হবে  তখন কিছুক্ষণের জন্য আলদা থাকুন। এতে একজন আরেকজনকে মিস করবেন। আর এটিই আপনাদেরকে আর কাছে নিয়ে আসবে। আর নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝিটা দূর হয়ে যাবে।

৫। সৌজন্য পালন করুন

সাধারণত কাছের মানুষের সাথে আমরা কোন প্রকার সৌজন্য করি না। আমরা মনে করি কাছের মানুষের সাথে কিসের সৌজন্য। কিন্তু সম্পর্কে কিছুটা সৌজন্য পালন করা উচিত। দৈনন্দিন কাজে সঙ্গীকে ধন্যবাদ জানান। তা যত ছোট কাজই হোক না কেন।

৬। সঙ্গীর কথা ভাবুন

কোন সিদ্ধান্ত বা কাজ করার আগে সঙ্গীর কথা ভাবুন। এমন কোন কাজ করবেন না যার প্রভাব আপনার সঙ্গীর ওপর পরে। যেকোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে তার সাথে আলোচনা করে নিন। অসুখী দম্পত্তি সর্বদা নিজের কথা চিন্তা করে থাকে। পরিবারের সিদ্ধান্তগুলো একাই নিয়ে থাকে। পরবর্তীতে এই বিষয় নিয়ে সৃষ্টি হয় ঝগড়ার।

৭। মনে রাখুন কিছু সমস্যা রয়ে যাবে

আপনার সাথে আপনার সঙ্গীর সব মত সবসময় এক নাও হতে পারে। এটা মেনে নিন। দুইজন মানুষের চিন্তা, সিদ্ধান্ত সব সময় এক হবে না। এটা মেনে নিন। দেখবেন অনেকখানি ঝগড়া কমে গেছে।

যেকোন সম্পর্কে একে অপরের প্রতি সম্মান থাকাটা জরুরি। সম্মান, ভালবাসা দিয়ে সৃষ্টি হয় একটি সম্পর্ক।  দাম্পত্য সম্পর্কও এর ব্যতিক্রম নয়। নিজেদের মধ্যে বোঝাবুঝিটা ঠিক রাখুন আর বিশ্বাস করুন একে অপরকে। দেখবেন আপনাদের চেয়ে সুখী দম্পতি আর দ্বিতীয়টি খুঁজে পাবেন না।

আজকের প্রশ্ন

শিক্ষা অধিদফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহনীয় মাত্রায় ঘুষ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। জাতির জন্য এমন পরামর্শ ভয়ানক নয় কি?