বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০১৮, ১২:৩৮:২০

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা থেকে ৪ মাসের রেহাই পেলো ইরান

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা থেকে ৪ মাসের রেহাই পেলো ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কিছু সময়ের জন্য মার্কিন নিষেধাজ্ঞা থেকে রেহাই পেলো ইরান। ২০১৫ সালে ৬ বিশ্ব শক্তির সঙ্গে ইরানের পারমাণবিক চুক্তিটি আপাতত বহাল রাখছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে এটিই ‘শেষ সুযোগ’ বলে সতর্ক করেছেন তিনি।

গত শুক্রবার হোয়াইট হাউজ কর্তৃপক্ষ শেষবারের মতো প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা থেকে বিরত থাকলেন। তবে আগামী ১২০ দিনের মধ্যে ইউরোপীয় মিত্রদের সঙ্গে বৃহত্তর ঐক্য প্রতিষ্ঠা করে তিনি ইরানের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবেন। নিষেধাজ্ঞার ছাড়পত্রে ট্রাম্পের সইয়ের মাধ্যমে ইরানে আরো ১২০ দিনের জন্য মার্কিন নিষেধাজ্ঞা স্থগিত থাকবে। সূত্র বিবিসি, পার্স টিভি।

ট্রাম্প বলেন, এটা হচ্ছে শেষ সুযোগ। আমেরিকা ও ইউরোপের মধ্যে সমঝোতা না হলে আমেরিকা আর ইরানকে নিষেধাজ্ঞা মুক্তির সুবিধা দেবে না। তিনি আরো বলেন, যদি কোনো সময় আমি এমন চুক্তিতে আওতার বাইরে যেতে দেখি, তাহলে অবিলম্বে এই চুক্তি থেকে নিজেকে সরিয়ে নেবো।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে ওয়াশিংটনকে সতর্ক করে দেয়ার পর ট্রাম্প তার এই অবস্থান ঘোষণা করেন।

ইরানের ওপর সন্ত্রাস, মানবাধিকার এবং ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উন্নয়নের মত আরো কিছু ক্ষেত্রে এখনো নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। ইরানের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের দিকেও নজর দেওয়া হোক বলে চেয়েছেন ট্রাম্প।

ইরানের পরমাণু সমঝোতা নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সর্বশেষ এ ঘোষণাকে একটি আন্তর্জাতিক চুক্তিকে দুর্বল করার ‘বেপরোয়া প্রচেষ্টা’ বলে অভিহিত করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাওয়াদ জারিফ।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শুক্রবার রাতে এক টুইটার বার্তায় বলেন, ট্রাম্প তার সর্বশেষ ঘোষণার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সমাজের সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার ২৬, ২৮ ও ২৯ নম্বর অনুচ্ছেদ বিদ্বেষপূর্ণভাবে লঙ্ঘন করেছেন।

ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচির ওপর স্থায়ীভাবে কড়াকড়ি আরোপ করতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের চুক্তি স্বাক্ষরকারী দেশগুলোর সঙ্গে এ  চুক্তি চাইছে হোয়াইট হাউজ। বর্তমান চুক্তিটির সময়সীমা শেষ হবে ২০২৫ সালে।

২০১৫ সালে বিশ্বের শক্তিধর ছয় দেশ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, চীন, রাশিয়া, জার্মানি ও ফ্রান্সের সঙ্গে ওই চুক্তি স্বাক্ষর করে ইরান। এর আওতায় ইরান তাদের পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ কমানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। বিভিন্ন বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হবে- এ শর্তেই ইরান তাদের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচি অনেকাংশে কমাতে রাজি হয়।

ফলে ইরানের ওপর দশকের পর দশক ধরে আরোপ থাকা পরমাণু বিষয়ক মার্কিন নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করা হয়। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রতি ১২০ দিন পরপর ওই নিষেধাজ্ঞার ছাড়পত্র সই করতে বাধ্য।

কিন্তু ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকেই চুক্তিটির সমালোচনা করে আসছেন। তবে ইউরোপের শক্তিধর দেশগুলো চুক্তিটিকে আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার জন্য চুক্তিটি বাতিল না করার আহ্বান জানিয়েছে।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি জাতিসংঘে যাওয়ায় সরকার আতঙ্কিত - ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?