সোমবার, ২৩ জুলাই ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল, ২০১৮, ০২:০৩:৫২

পশ্চিমারা নিজেদের আদর্শ প্রচারে ইসলাম ফোবিয়াকে ব্যবহার করছে: এরদোগান

পশ্চিমারা নিজেদের আদর্শ প্রচারে ইসলাম ফোবিয়াকে ব্যবহার করছে: এরদোগান

ইস্তাম্বুল: পশ্চিমারা ইসলাম ফোবিয়াকে নিজেদের আদর্শ প্রচার করার জন্য ব্যবহার করছে বলে মন্তব্য করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান।

বিশ্ব সংখ্যালঘু মুলিম সম্প্রদায়ের এক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘৯/১১ এর পর থেকেই তারা ইসলামফোবিয়া ছড়াচ্ছে, তারা বিভিন্ন সন্ত্রাসী গ্রুপ তৈরী করেছে যা আগে কখনোই ছিল না, যারা নিষ্পাপ মানুষদের জবাই করে হত্যা করে তারা মুসলিম হতে পারে না’।

সংসদীয় উপকমিটির মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান ওমার সারদার বলেন, সম্প্রতি ইসলামের নামে বিভিন্ন সন্ত্রাসী গ্রুপ যেগুলো আছে তাদের সাথে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই বরং তাদের দ্বারা ইসলামফোবিয়া প্রচার সহজ হচ্ছে’।

আরো পড়ুন . . .

সন্ত্রাসীদের মদদ দেয়ায় পশ্চিমরা একদিন সন্ত্রাসেই নিঃশেষ হবে: এরদোগান
সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করার জন্য ফরাসি সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। শনিবার জার্মানিতে গাড়ির হামলার বিষয়ে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, ফ্রান্সেও একই ঘটনা ঘটবে।

দক্ষিণাঞ্চলীয় দীনজিলি প্রদেশ সফরে সমর্থকদের উদ্দেশ্য দেয়া বক্তব্যে এরদোগান এসব কথা বলেন।

শনিবার বিকালে মুনস্টারের ওই হামলার ঘটনাকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রাজনৈতিক চরমপন্থার কাজ বলে মনে করছেন।

ফরাসি প্রেসিডেন্টকে উদ্দেশ্য করে এরদোগান বলেন, ‘আপনি জার্মানিতে কি ঘটছে তা নিশ্চয় দেখতে পাচ্ছেন। একই ঘটনা ফ্রান্সেও ঘটবে।’

তিনি বলেন, ‘পশ্চিমারা সন্ত্রাস থেকে নিজেদের মুক্ত করতে সক্ষম হবে না। সন্ত্রাসীদের লালন-পালন করার কারণে পশ্চিমরা সন্ত্রাসেই নিঃশেষ হবে।’

জার্মানির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর মুনস্টারে পথচারীদের ওপর একটি গাড়ি তুলে দেয়ার পর এ পর্যন্ত অন্তত দুই জন নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। আহত হয়েছে আরো অন্তত ২০ জন। হামলাকারীর মানসিক সমস্যা ছিল এবং এটি ইসলামি আক্রমণের কোনো ইঙ্গিত নয় বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে আঙ্কারা এবং প্যারিসের মধ্যেকার সম্পর্কে ফাটল ধরেছে। সিরিয়ার উত্তরে আফরিনে কুর্দি বাহিনীর বিরুদ্ধে তুরস্কের সামরিক অভিযানে ফরাসি বিরোধিতা এরদোগান সরকারকে ক্ষুব্ধ করে।

মার্চের শেষের দিকে উত্তেজনা আরো বেড়ে যায়। ওই সময়ে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁ এলিসি প্যালেসে কুর্দি ওয়াইপিজি সহ সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক বাহিনীর (এসডিএফ) একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেন। তুরস্ক এদেরকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে থাকে।

 

ইস্তাম্বুল: পশ্চিমারা ইসলাম ফোবিয়াকে নিজেদের আদর্শ প্রচার করার জন্য ব্যবহার করছে বলে মন্তব্য করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান।

বিশ্ব সংখ্যালঘু মুলিম সম্প্রদায়ের এক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘৯/১১ এর পর থেকেই তারা ইসলামফোবিয়া ছড়াচ্ছে, তারা বিভিন্ন সন্ত্রাসী গ্রুপ তৈরী করেছে যা আগে কখনোই ছিল না, যারা নিষ্পাপ মানুষদের জবাই করে হত্যা করে তারা মুসলিম হতে পারে না’।

সংসদীয় উপকমিটির মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান ওমার সারদার বলেন, সম্প্রতি ইসলামের নামে বিভিন্ন সন্ত্রাসী গ্রুপ যেগুলো আছে তাদের সাথে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই বরং তাদের দ্বারা ইসলামফোবিয়া প্রচার সহজ হচ্ছে’।

আরো পড়ুন . . .

সন্ত্রাসীদের মদদ দেয়ায় পশ্চিমরা একদিন সন্ত্রাসেই নিঃশেষ হবে: এরদোগান
সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করার জন্য ফরাসি সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। শনিবার জার্মানিতে গাড়ির হামলার বিষয়ে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, ফ্রান্সেও একই ঘটনা ঘটবে।

দক্ষিণাঞ্চলীয় দীনজিলি প্রদেশ সফরে সমর্থকদের উদ্দেশ্য দেয়া বক্তব্যে এরদোগান এসব কথা বলেন।

শনিবার বিকালে মুনস্টারের ওই হামলার ঘটনাকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রাজনৈতিক চরমপন্থার কাজ বলে মনে করছেন।

ফরাসি প্রেসিডেন্টকে উদ্দেশ্য করে এরদোগান বলেন, ‘আপনি জার্মানিতে কি ঘটছে তা নিশ্চয় দেখতে পাচ্ছেন। একই ঘটনা ফ্রান্সেও ঘটবে।’

তিনি বলেন, ‘পশ্চিমারা সন্ত্রাস থেকে নিজেদের মুক্ত করতে সক্ষম হবে না। সন্ত্রাসীদের লালন-পালন করার কারণে পশ্চিমরা সন্ত্রাসেই নিঃশেষ হবে।’

জার্মানির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর মুনস্টারে পথচারীদের ওপর একটি গাড়ি তুলে দেয়ার পর এ পর্যন্ত অন্তত দুই জন নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। আহত হয়েছে আরো অন্তত ২০ জন। হামলাকারীর মানসিক সমস্যা ছিল এবং এটি ইসলামি আক্রমণের কোনো ইঙ্গিত নয় বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে আঙ্কারা এবং প্যারিসের মধ্যেকার সম্পর্কে ফাটল ধরেছে। সিরিয়ার উত্তরে আফরিনে কুর্দি বাহিনীর বিরুদ্ধে তুরস্কের সামরিক অভিযানে ফরাসি বিরোধিতা এরদোগান সরকারকে ক্ষুব্ধ করে।

মার্চের শেষের দিকে উত্তেজনা আরো বেড়ে যায়। ওই সময়ে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁ এলিসি প্যালেসে কুর্দি ওয়াইপিজি সহ সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক বাহিনীর (এসডিএফ) একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেন। তুরস্ক এদেরকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে থাকে।

 

আজকের প্রশ্ন

খুলনা সিটি নির্বাচনের ভোটকে ‘প্রহসন’ বলেছেন বিএনপি ও বামপন্থিরা। আপনি কি একমত?