সোমবার, ২৫ জুন ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

বুধবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৭, ১১:২৬:২৯

ময়মনসিংহে নবজাতক পরিবর্তন নিয়ে দ্বন্দ্ব, ডিএনএ পরীক্ষার আবেদন

ময়মনসিংহে নবজাতক পরিবর্তন নিয়ে দ্বন্দ্ব, ডিএনএ পরীক্ষার আবেদন

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহ সরকারী মেডিক্যাল কলেজে নবজাতক পরিবর্তন নিয়ে দ্বন্দ্ব প্রকট আকার ধারণ করেছে। পরিশেষে ডিএনএ পরীক্ষার আবেদন করেছে ভুক্তভোগী।  
ছেলেসন্তান হলেও তা বদলে মেয়েসন্তান দেয়া হয়েছে, এমন অভিযোগ এনে এক দম্পতি সন্তান গ্রহণ না করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অবস্থান করছেন। এ কারণে বুধবার বিকেলে হাসপাতালে থাকা কন্যাশিশুটির ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহের বিচারিক আদালতে আবেদন করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানিয়েছে, আদালতের অনুমতি পেলে কন্যাশিশুটির ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হবে। মেয়েসন্তান গ্রহণ না করে হাসপাতালে অবস্থান করা ওই দম্পতির নাম পাপিয়া খাতুন (২৫) ও মনু মিয়া (৩০)। পাপিয়া-মনু দম্পতির বাড়ি ময়মনসিংহ সদর উপজেলার বাদেকল্পা গ্রামে। সন্তান বদলে দেয়ার অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তাঁরা আইনি পদক্ষেপ না নিলেও নিজ সন্তান ফেরত পাওয়ার দাবিতে হাসপাতালেই অবস্থান করছেন।
ওই দম্পতির অভিযোগ, ১০ ডিসেম্বর হাসপাতালে তাঁদের ছেলেসন্তান জন্ম নেয়। পরে নবজাতক ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকার সময়ে ছেলেসন্তানের বদলে তাঁদের মেয়েসন্তান দেয়া হয়। এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানায় মানব পাচার আইনে মামলা করেন। মামলায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়।
ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হক বলেন, ‘আমরা মামলার তদন্তে দুটি বিষয়ের ওপর জোর দিয়েছি। হাসপাতালের ওয়ার্ডে শিশুটির জন্মের পর ভুলবশত মেয়ের বদলে ছেলে লেখা হতে পারে। আবার শিশুটিকে ইচ্ছা করেও বদল করা হতে পারে। তাই প্রথমে মেয়েশিশুটির ডিএনএ পরীক্ষার জন্য আবেদন করা হয়েছে।
মনু মিয়া বলেন, ‘আমার স্ত্রী ও আমি হাসপাতালেই অবস্থান করছি। আমাদের সন্তানকে না পাওয়া পর্যন্ত বাড়ি ফিরব না।’ ১০ ডিসেম্বর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে মনু মিয়া ও পাপিয়া দম্পতির সন্তানের জন্ম হয়। জন্মের পর ওই দম্পতি নিশ্চিত হন তাঁদের ছেলেসন্তান হয়েছে। জন্মের পরপর অসুস্থতার জন্য শিশুটিকে একই হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরে গত সোমবার দুপুরে শিশুটিকে ফেরত দেয়ার সময় মেয়েসন্তান দেয়া হয়। এরপর থেকে ওই দম্পতি মেয়েসন্তানকে না নিয়ে হাসপাতালে অবস্থান করছেন।

আজকের প্রশ্ন

খুলনা সিটি নির্বাচনের ভোটকে ‘প্রহসন’ বলেছেন বিএনপি ও বামপন্থিরা। আপনি কি একমত?