ঢাকা, সোমবার ২৬শে জুন ২০১৭ - 

তানোরে শিশুরাই কলেজের ছাত্র!

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 বৃহঃস্পতিবার ১৮ই মে ২০১৭

আব্দুস সবুর, তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি : জালিয়াতি করে প্রতিষ্ঠা করা হয় কলেজ। ভবন থাকলেও হয়না ক্লাস। অন্যের জমি জালিয়াতি করে প্রতিষ্ঠা করা হয় রাজশাহীর মাদারীপুর আইডিয়াল কলেজ। কলেজের খাতা কলমে শিক্ষার্থীর সংখ্যা দেখানো হলেও প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৬ বছরে কোন ধরনের হয়না ক্লাস। নিজের কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি করিয়ে অন্য কলেজে চুক্তিতে দেয়া হয় শিক্ষার্থী।

এমন অলোকিক প্রতিষ্ঠান থাকতে পারে এ ডিজিটাল যুগে ভাবাই কল্পনাতীত। আবার সামনে না কি এমপিও হবে বলে আদায় করা হচ্ছে শিক্ষক কর্মচারীদের কাছ থেকে কাড়িকাড়ি টাকা। কাগজে কলমে ও ইন্টারনেটে সব কিছু রাখা হয়েছে ঠিকঠাক। ক্লাস না হলেও ওই কলেজ থেকে আবার হয় পরীক্ষা। ওই কলেজের শিক্ষার্থীদের চুক্তি ভিত্তিক তালন্দ ললিত মোহন কলেজে ক্লাস করার সুযোগ করে দেয়া হয়। 

সেখানে ক্লাস অনিয়মিত ভাবে করে পরীক্ষা দিতে সুযোগ করে দেয়া হয় শিক্ষার্থীদের। গত এইচএসসি পরীক্ষায় ১৬ জন শিক্ষার্থী ওই আইডিয়াল কলেজ থেকে অংশ নিয়েছিলেন বলে জানায় কলেজ কর্তৃপক্ষ। অধ্যক্ষ ইসরাফিলের এমন জালিয়াতিতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে ওই এলাকাবাসী।

এজন্যে বাধ্য হয়ে জালিয়াতি করে কলেজ প্রতিষ্ঠা ও নিয়োগ দেবার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেবার বিরুদ্ধে মাদারীপুর গ্রামের মৃত মোজাম্মেল হক মৃধার পুত্র মুকলেস মৃধা চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহের দিকে দুর্নীতি দমন কমিশনে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেন। গত সোমবার কলেজে গিয়ে দেখা যায় কিছু শিশু শিক্ষার্থী ঘোরা ফেরা করছেন। কলেজের ছবি তুলতেই শিশুরা দোড়াদোড়ি শুরু করে। 

কলেজের কয়েকটি কক্ষে নেয়া হয় শিশুদের ক্লাস। কলেজের ভিতরে যেতে শ্রেণি কক্ষে সাটানো আছে কেজি স্কুলের সাইনবোর্ড। কয়েক বছর ধরে চলছে এমন অবস্থা। অধ্যক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে চৌবাড়িয়া মালশিরা স্কুলের শিক্ষক আসাদুল মাদারীপুর আইডিয়াল কলেজে খুলেছেন কেজি স্কুল। তিনিও অধিক টাকার লোভে স্কুলে নিয়মিত ক্লাস না নিয়ে কেজি স্কুলেই বেশি সময় দেন বলে একাধিক সূত্র থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে। 

শ্রেণি কক্ষের ভেতরে কেজি স্কুলের সাইন বোর্ডের ছবি তুলতেই নামিয়ে ফেলা হয় সাইন বোর্ডটি। সেখানে ছিলেন কলেজের প্রভাষক আফজাল হোসেন। তিনি বলেন, যেহেতু কলেজে ক্লাস হয় না এজন্যে এলাকাবাসীর অনুমতিতে কেজি স্কুলটি চলছে। জমি জমার কোন সমস্যা নেয়। 

আশা করছি অল্প দিনের মধ্যে এমপিও হবে কলেজটি। আপনারা বসেন অধ্যক্ষকে ডাকা হচ্ছে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে এ কলেজে বেগার দিয়ে যাচ্ছি। আপনাদের শিক্ষার্থী কোথায়, শিক্ষক কোথায় জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, শিক্ষকেরা শিক্ষার্থীদের খোঁজে গ্রামে গ্রামে গেছেন। ক্লাস হয় না কেন জানতে চাইলে তিনি জানান, কতদিন বিনা পয়সায় চলা যায় এসব কথা বলতেই হাজির হয় অধ্যক্ষ ইসরাফিল। 

তিনি বলেন, কলেজ সম্পর্কে রির্পোট করার দরকার নেয়। অল্প দিনের মধ্যে এমপিও হবে তখন জাকজমক পূর্ণ অনুষ্ঠান করে ডাকা হবে আপনাদের। আপনার কলেজের জায়গা নাকি জালিয়াতি জানতে চাইলে এড়িয়ে গিয়ে বলেন, জায়গার সমস্যা আছে অতি দ্রুত সমাধান করা হবে। কলেজে শিশু শিক্ষার্থী কিভাবে আসে। জানতে চাইলে তিনি জানান, আমরাই এলাকার শিশুদের সুবিধার্থে কেজি স্কুলের ক্লাস নিতে বলেছি। 

যেহেতু কলেজটি ফাঁকা পড়ে থাকে। এজন্যেই নেয় ক্লাস। অভিযোগ সূত্রে জানা যায় মাদারীপুর আইডিয়াল কলেজটি প্রতিষ্ঠা করা হয় ১৯৯৯ সালের দিকে। একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে জমির প্রয়োজন পড়ে। প্রথমে জাল দলিল তৈরি করে করা হয় কলেজ। ১৯৯৯ সালে এমএ হামিদ সাব-রেজিষ্ট্রার স্বাক্ষরিত জাল দলিল তৈরি করেন অধ্যক্ষ। অথচ এ পর্যন্ত যত সাব-রেজিষ্ট্রার এসেছেন বা বদলি হয়েছেন তাদের মধ্যে এমএ হামিদ নামে কোন সাব-রেজিষ্ট্রার তানোরে আসেননি। এমনকি জাল দলিলের মুহুরী হিসেবে লেখকের নাম দেখানো হয় কলিম উদ্দীন। 

অথচ তিনি বিগত ২৫ বছর আগে মৃত্যুবরণ করেন। জাল দলিলের তারিখ দেখানো আছে ০৮/০২/১৯৯৯, দলিল নং-৫০২৪ দানপত্র। কিন্তু এ দলিলটি উপজেলার নবনবী মৌজার জমি রেজিষ্ট্রী হয়। এই নবনবী মৌজার জমিটি জালিয়াতি করে কলেজের নামে খারিজ করেন। 

জালিয়াতির মাধ্যমে কলেজের নামে ৫২ শতাংশ জমি করে নেয়। কিন্তু ওই ৫২ শতাংশ জমির মধ্যে ৩১ শতাংশ জমি অধ্যক্ষের ভাই এ্যাড: আলিম চৌধুরীর নামে। তিনি নিজ নামে জমিটি খারিজ খাজনা করেছেন। এভাবে চলে আসছে কলেজটি এ অবস্থায় এমপিও হবে এমন কথা বলে পূণরায় শিক্ষকদের কাছ থেকে কাড়িকাড়ি টাকা আদায় করছেন অধ্যক্ষ। শিক্ষার্থী না থাকলেও শিক্ষক কর্মচারী রয়েছেন ৩৩ জন। 

এলাকাবাসীর দাবী সরেজমিনে কলেজটি নিয়ে কর্তৃপক্ষ তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে আরো ভয়াবহ জালিয়াতি। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শওকাত আলীর ব্যক্তিগত মোবাইলে ফোন দেয়া হলে তিনি রিসিভ করেন নি।



যে কারণে এবারের ঈদে খোশমেজাজে খালেদা জিয়া আজ খুশির ঈদ ঢাকায় পুলিশের ১৩ পদে রদবদল শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, সোমবার ঈদ সোমবার দিনটি আপনার কেমন যাবে? নির্বাচন বাধাগ্রস্ত করার কোনও ক্ষমতা খালেদার নেই সিলেটের ১৯ আসনে আ'লীগের প্রার্থী ৪৪ যুক্তরাজ্যে ঈদের নামাজিদের উপর নিয়ন্ত্রণহীন গাড়ি নোটিশ না দিয়ে বাড়ি ভাঙা হচ্ছে : মওদুদ ফের চাঙ্গা হচ্ছে বিএনপি জোট নেতাদের নামে ৭ হাজার মামলা খালি পায়ে হাঁটলে বুদ্ধি বাড়ে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে মার্সেল পণ্যের বিক্রি স্ত্রীর প্রতারণায় দিশেহারা প্রবাসী স্বামী গোপালগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধ নিহত আবার শ্রীদেবী-অনিল জুটি! বাংলাদেশ ছেড়ে শ্রীলঙ্কার কোচ হবেন হাথুরুসিংহে? ঈদুল ফিতরের নামাজ পড়ার নিয়ম চিকুনগুনিয়ার ব্যথা হলে যা করবেন ‘বাহুবলি’র মায়ের সঙ্গে রোমান্স করেছিলেন শাহরুখ! শিক্ষিকার সঙ্গে সম্পর্ক, অতঃপর ফিনল্যান্ডে উৎসবমুখর পরিবেশে পালিত হচ্ছে ঈদ ঈদের সকালে বজ্রবৃষ্টির শঙ্কা বিএনপির সব নেতার পদত্যাগ করা উচিৎ ত্বকের সৌন্দর্যে নিমপাতার ফেসপ্যাক শাকিবকে বহিষ্কারের বিষয়টি রহস্যজনক: ত্যথমন্ত্রী এয়ারটেলের দুরন্ত অফার, ৩ মাসের জন্য মিলছে ফ্রি ইন্টারনেট! বহির্নোঙ্গরে তলা ফেটে চরে আটকা ক্লিংকার বোঝাই জাহাজ নিজের খোলামেলা ছবি প্রকাশ করলেন কারিশমা কক্সবাজারে পুকুরে ডুবে ৩ শিশুর সলিল সমাধি আমার সংসার দুইটা: অপু বিশ্বাস গরমের পর বৃষ্টি, সাবধানে থাকুন সৌদি আরবে ঈদুল ফিতর উদযাপিত তেলের ট্যাংকারে আগুন: নিহত ১২৩ মওদুদের গুলশানের বাড়ি ভাঙা হচ্ছে গজল ডোবার গেট খুলে দিয়েছে ভারত, আতঙ্কে তিস্তা পাড়ের মানুষ টার্নওভারে বস্ত্রখাতের প্রাধান্য ‘গরুর গোশত খায় বলে মুসলিম তরুণদের ওপর হামলা করেছি’ নারীদের চুল রাখার বিধান ঈদে মেহেদীর নজর কাড়া ডিজাইন (ভিডিও) ঈদের দিন আবহাওয়া যেমন থাকবে আপনি কি বদমেজাজি! জেনে নিন কি কারণে নিয়োগ দেওয়া হবে ১০ হাজার চিকিৎসক যুক্তরাজ্যের নির্বাচনে রেকর্ড সংখ্যক মুসলিম প্রার্থী এমপি নির্বাচিত ঈদের পর দলে ফেরার অপেক্ষায় বিএনপির সংস্কারপন্থি নেতারা নারীর গোপন যে ৪টি তথ্য কেউ দেবে না ধোনির এই অনন্য কীর্তির কথা জানেন কি? এই গরমে প্রেগন্যান্ট হলে এ ভাবে পোশাক পরে স্বস্তিতে থাকুন জেনে নিন রবিবার দিনটি আপনার কেমন যাবে? ‘আমি আব্দুল আজিজ শাকিবকে নিয়ে সিনেমা বানাবো’ চাঁদ দেখা গেছে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়ায়