ঢাকা, মঙ্গলবার ২২শে আগস্ট ২০১৭ - 

সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করা হবে

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 রবিবার ১১ই জুন ২০১৭

শেখ হাসিনার অধীনে নয় সহায়ক সরকারের অধীনে  নির্বাচন চাই। আর সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমে বাধ্য করা হবে । বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ঢাকা দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল এ মন্তব্য করেছেন। একান্ত  স্বাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন ।


টানা ১১ বছর ও ৪ রাষ্ট্রক্ষমতায় এবং ৪ বছর সংসদের বাইরে থাকা বিএনপি  সাংগঠনিকভাবে দুর্বল এবং আত্মবিশ্বাসের জায়গায় নড়বড়ে হয়ে পড়েছে।


দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে শুরু করে তৃনমুল পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে হতাশা।


বিএনপির নেতাকর্মী থেকে শুরু করে দেশের সাধারন মানুষ সবার মধ্যেই এখন একটাই ধারনা এই বিএনপি দিয়ে কিছু হবে না।


সুনিদির্ষ্ট কোন লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য স্থির করতে না পারায় দলটির গভীরে হতাশায় ডুবে গেছে।দেশের নিপীড়িত সাধারন মানুষ এখনো তাকিয়ে রয়েছে একটি কঠোর সফর আন্দোলনের দিকে।


দেশের বৃহৎ একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে যে স্ট্যাটেজিতে বিএনপির চলার কথা ছিল, সেই স্ট্যাটেজিতে তারা নেই। এ কারণে ২০১৪ সালের ১৮ জুলাই সাদেক হোসেন খোকা ও আব্দুস সালামকে সরিয়ে মির্জা আব্বাস ও হাবিবুন নবী খান সোহেলকে মহানগর বিএনপির দায়িত্ব দেওয়া হয় । কিন্তু এরপরেও বিএনপির অবস্থা আরো করুন হয়ে পড়ে। যে নেতাদের ওপর দায়িত্ব দেয়া হয় কথিত রয়েছে আন্দোলনের ডাক দিয়ে নেতারা পার্লারে গিয়ে রুপর্চচায় ব্যস্ত থাকতেন।


পরবর্তীতে আবারো মহানগর বিএনপিকে দুই ভাগ করে দায়িত্ব দেয়া হয় আন্দেঅরন কর্মসূচিকে আরো জোড়দার করা লক্ষ্যে। ঢাকা মহানগ বিএনপির দক্ষিণে হাবিবুন নবী খান সোহেলকে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।  যেহেতু আগের কর্মসূচি নিয়ে অনেক বিতর্ক ছিল ।


এবার ডাকসাইটের সেই নেতা হাবিবুন নবী খান সোহেল আন্দোলন নিয়ে কি ভাবছেন সে ব্যাপারে কথা হয় তার সঙ্গে।


তিনি বলেন , দলের  সবার সহায়তা , সক্রিয়তা, ও প্রচেস্টার মাধ্যমে এ দায়িত্ব পালনে বদ্ধ পরিকর।


ঢাকার আন্দোলনে কোন ব্যর্থতা্ নেই নেতাদের ।  বরং সফল হয়েছে । ২০১৪ সালে বির্তকিত এক তরফা নির্বাচনে আমরা জনগনকে কেন্দ্র বিমুখ করতে পেরেছি। জনগন ভোট দিতে যায়নি। জনগনকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি যে এ নির্বাচন সাজানো -পাতানো । ঢাকা মহানগর আন্দোলনে সব ধরনের জনগনকে সম্পৃক্ত করতে পেরেছি বলেই তারা নির্বাচনে অংশগ্রহন করেনি। এ কারনেই কিন্তু আজকের সরকার জনবিচ্ছিন্ন সরকার। সুতারং আমরা সফল।


আমরা দলের সমস্ত ইউনিটগুলোকে সুসংগঠিত করবো । কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের দাবীর সঙ্গে জনগনকে আরো গভীরভাবে  সম্পৃক্ত করবো। জনগনের দাবী আদায় করার জন্য জনগনকে নিয়েই আমরা মাঠে নামবো।


নির্বাচনের জন্য রুট থাকতে হবে, তারপর রোডম্যাপ, কিন্তু সেই রুট নেই। এখনও বিরোধী দলের কথা বলার সুযোগ নেই। স্বাভাবিক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড করার সুযোগ নেই। এখনও নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি


এ মুর্হুতে জনগনের দাবী সবার আগে নির্বাচনকালীন একটি সহায়ক সরকার এবং একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন ।


যে প্রক্রিয়ায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে যাদেরকে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব দেযা হয়েছে তাতে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করতে পারছি না।


তিনি বলেন, বর্তমান সরকার জনগণের সরকার নয়। জনগণের সরকার থাকলে এমনটি কখনো হতো না। আগামী দিনে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে এই অগণতান্ত্রিক সরকারকে বাধ্য করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত করা হবে।


আগামী দিনে রাজপথ দখল করতে না পারলে ভোটকেন্দ্র দখল করা যাবে না। আমরা যতই সহায়ক সরকারের কথা বলি আন্দোলন করতে না পারলে এই দেশের আমলারা ভোটের সময় শেখ হাসিনার পক্ষেই কাজ করবেন ।


শেখ হাসিনার নির্বাহী আদেশের বাইরে গিয়ে বর্তমান নির্বাচন কমিশন কোনভাবেই সিুষ নির্বাচন  করতে পারবেন না।


দল যেহেতু চায় একটি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড । আমরাও স্টো চাই।  নিরপেক্ষ নিবার্ছন কোনভাবেই শেখ হাসিনার অধীনে হতেক পারবে না। সেজন্য আমরাও কখনোই শেখ হাসিনার অধীনে কোন নিরর্বাচনে অংশগ্রহন করবো না্ ।  আমরা সেজন্যই রোডম্যাপ বা রাস্তার মাপ চাই না্ । সহায়ক সরকার চাই।

হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, যুগ্ন-মহা সচিব বিএনপি

তুরস্কের সঙ্গে সম্পর্ক আরো জোরদারের অঙ্গীকার পাক প্রধানমন্ত্রীর নূর হোসেন-তারেক সাঈদসহ ১৫ জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল হেনারা’র চিকিৎসার্থে সাহায্যের হাত বাড়ালেন ‘‘ফ্রেন্ডস ফর লাইফ’’ নারী যাত্রীকে ধর্ষণের ইচ্ছে হয়েছিল, স্বীকারোক্তি উবের চালকের ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সরকার সীমালংঘন করছে : বাম মোর্চা আ.লীগের ভাব দেখে মনে হচ্ছে তারা এদেশের মালিক: ফখরুল ‘বাংলাদেশের উন্নয়নে জাপানের সহায়তা অব্যাহত থাকবে’ ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা দিবস উপলক্ষে ভোলা জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা নওগাঁয় বিদ্যানিকেতন স্কুলের ত্রান বিতরণ খাগড়াছড়িতে রিড প্রকল্পের দু’দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা কোটালীপাড়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ: মামলা না করতে নিষেধ ঠাকুরগাঁওয়ে শিশু সাংবাদিকতা বিষয়ে ৩ দিনের প্রশিক্ষণের সমাপ্তি আফগানিস্তান থেকে সেনা সরাবে না ট্রাম্প জরুরি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে বিএনপি ‘৬ ধাপ পিছিয়ে সাংবাদিকরা’ বৃহস্পতিবারের মধ্যে প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগ করতে হবে: আইনজীবী পরিষদ জাল টাকা ছাপানো চক্রের ৭ জন গ্রেপ্তার ইসরাইলের দীর্ঘস্থায়ী বৈরী মনোভাবের নিন্দা হামাস ও ফাতাহ’র তামিমের জন্য আবারো সুখবর! যুবদলের প্রচার প্রকাশনায় নতুন নির্দেশনা আবারও শীর্ষে নাদাল ক্ষমতাসীন দল না চাইলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়: সুজন সানলাইফ ইন্স্যুরেন্স স্পট মার্কেটে যাচ্ছে বুধবার গোপালগঞ্জে বিশেষ অভিযানে ৫৩ জন গ্রেফতার ৩ ঘণ্টায় ৪ কোম্পানি হল্টেড স্বপ্ন এখন লাশ ঘরে গোপালগঞ্জে ছুড়িকাঘাতে ইউপি সদস্যের মৃত্যু সামনে দিয়ে হাঁটার অভিযোগে স্ত্রীকে তালাক! স্যারোগেসির জন্য চেম্বারে আসতেই ধর্ষণের শিকার নারী শেয়ার কিনবেন ন্যাশনাল লাইফের উদ্যোক্তা পরিচালক জেনে নিন বজ্রপাত থেকে বাঁচার উপায়! জানাজার বিষয়ে বড় ছেলেকে যা বলে গিয়েছিলেন নায়করাজ ভারতে তিন তালাক স্থগিত মিডিয়ার যেসব মেয়েরা ড্রাগ নেয়, সবগুলোকে জেলের ভাত খাওয়ানো উচিত : অভিনেত্রী ফারিয়া শাহরিন আইন সচিবের নিয়োগ স্থগিত বারান্দায় এক যুগলের যৌনমিলন, উদ্দেশ্য এলাকাবাসীর নজরে পড়া… প্রথম ঘণ্টায় লেনদেন ২৬১ কোটি টাকা চীনের হুমকি উপেক্ষা করে কাছাকাছি ভারত-তাইওয়ান বিলাসবহুল গাড়িতে করে চুরি করতে যেত যে চোর ইসলামী ব্যাংকের উদ্যোক্তার শেয়ার বেচা সম্পন্ন ফের উত্তেজনা রুশ-মার্কিন সম্পর্কে সারাদেশেই বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা পাবনায় দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৫ এসব আমাদের বিবেককেও স্পর্শ করে, একেবারে নীরব থাকতে পারি না: প্রধান বিচারপতি ২০৯০ সালের আগে এমন সূর্যগ্রহণ আর হবে না লভ্যাংশ পাঠিয়েছে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক রাজ্জাকের মৃত্যুতে যা বললেন তার প্রথম নায়িকা সুচন্দা সাভারে নৌকায় বর্জ্রপাত: নিহত ২, নিখোঁজ ১০ রাজধানীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত প্রেমিকের সাথে বের হলেই দিতে হয় সতীত্বের পরীক্ষা!