ঢাকা, বৃহঃস্পতিবার ২৯শে জুন ২০১৭ - 

সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করা হবে

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 রবিবার ১১ই জুন ২০১৭

শেখ হাসিনার অধীনে নয় সহায়ক সরকারের অধীনে  নির্বাচন চাই। আর সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমে বাধ্য করা হবে । বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ঢাকা দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল এ মন্তব্য করেছেন। একান্ত  স্বাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন ।


টানা ১১ বছর ও ৪ রাষ্ট্রক্ষমতায় এবং ৪ বছর সংসদের বাইরে থাকা বিএনপি  সাংগঠনিকভাবে দুর্বল এবং আত্মবিশ্বাসের জায়গায় নড়বড়ে হয়ে পড়েছে।


দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে শুরু করে তৃনমুল পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে হতাশা।


বিএনপির নেতাকর্মী থেকে শুরু করে দেশের সাধারন মানুষ সবার মধ্যেই এখন একটাই ধারনা এই বিএনপি দিয়ে কিছু হবে না।


সুনিদির্ষ্ট কোন লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য স্থির করতে না পারায় দলটির গভীরে হতাশায় ডুবে গেছে।দেশের নিপীড়িত সাধারন মানুষ এখনো তাকিয়ে রয়েছে একটি কঠোর সফর আন্দোলনের দিকে।


দেশের বৃহৎ একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে যে স্ট্যাটেজিতে বিএনপির চলার কথা ছিল, সেই স্ট্যাটেজিতে তারা নেই। এ কারণে ২০১৪ সালের ১৮ জুলাই সাদেক হোসেন খোকা ও আব্দুস সালামকে সরিয়ে মির্জা আব্বাস ও হাবিবুন নবী খান সোহেলকে মহানগর বিএনপির দায়িত্ব দেওয়া হয় । কিন্তু এরপরেও বিএনপির অবস্থা আরো করুন হয়ে পড়ে। যে নেতাদের ওপর দায়িত্ব দেয়া হয় কথিত রয়েছে আন্দোলনের ডাক দিয়ে নেতারা পার্লারে গিয়ে রুপর্চচায় ব্যস্ত থাকতেন।


পরবর্তীতে আবারো মহানগর বিএনপিকে দুই ভাগ করে দায়িত্ব দেয়া হয় আন্দেঅরন কর্মসূচিকে আরো জোড়দার করা লক্ষ্যে। ঢাকা মহানগ বিএনপির দক্ষিণে হাবিবুন নবী খান সোহেলকে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।  যেহেতু আগের কর্মসূচি নিয়ে অনেক বিতর্ক ছিল ।


এবার ডাকসাইটের সেই নেতা হাবিবুন নবী খান সোহেল আন্দোলন নিয়ে কি ভাবছেন সে ব্যাপারে কথা হয় তার সঙ্গে।


তিনি বলেন , দলের  সবার সহায়তা , সক্রিয়তা, ও প্রচেস্টার মাধ্যমে এ দায়িত্ব পালনে বদ্ধ পরিকর।


ঢাকার আন্দোলনে কোন ব্যর্থতা্ নেই নেতাদের ।  বরং সফল হয়েছে । ২০১৪ সালে বির্তকিত এক তরফা নির্বাচনে আমরা জনগনকে কেন্দ্র বিমুখ করতে পেরেছি। জনগন ভোট দিতে যায়নি। জনগনকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি যে এ নির্বাচন সাজানো -পাতানো । ঢাকা মহানগর আন্দোলনে সব ধরনের জনগনকে সম্পৃক্ত করতে পেরেছি বলেই তারা নির্বাচনে অংশগ্রহন করেনি। এ কারনেই কিন্তু আজকের সরকার জনবিচ্ছিন্ন সরকার। সুতারং আমরা সফল।


আমরা দলের সমস্ত ইউনিটগুলোকে সুসংগঠিত করবো । কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের দাবীর সঙ্গে জনগনকে আরো গভীরভাবে  সম্পৃক্ত করবো। জনগনের দাবী আদায় করার জন্য জনগনকে নিয়েই আমরা মাঠে নামবো।


নির্বাচনের জন্য রুট থাকতে হবে, তারপর রোডম্যাপ, কিন্তু সেই রুট নেই। এখনও বিরোধী দলের কথা বলার সুযোগ নেই। স্বাভাবিক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড করার সুযোগ নেই। এখনও নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি


এ মুর্হুতে জনগনের দাবী সবার আগে নির্বাচনকালীন একটি সহায়ক সরকার এবং একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন ।


যে প্রক্রিয়ায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে যাদেরকে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব দেযা হয়েছে তাতে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন আশা করতে পারছি না।


তিনি বলেন, বর্তমান সরকার জনগণের সরকার নয়। জনগণের সরকার থাকলে এমনটি কখনো হতো না। আগামী দিনে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে এই অগণতান্ত্রিক সরকারকে বাধ্য করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত করা হবে।


আগামী দিনে রাজপথ দখল করতে না পারলে ভোটকেন্দ্র দখল করা যাবে না। আমরা যতই সহায়ক সরকারের কথা বলি আন্দোলন করতে না পারলে এই দেশের আমলারা ভোটের সময় শেখ হাসিনার পক্ষেই কাজ করবেন ।


শেখ হাসিনার নির্বাহী আদেশের বাইরে গিয়ে বর্তমান নির্বাচন কমিশন কোনভাবেই সিুষ নির্বাচন  করতে পারবেন না।


দল যেহেতু চায় একটি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড । আমরাও স্টো চাই।  নিরপেক্ষ নিবার্ছন কোনভাবেই শেখ হাসিনার অধীনে হতেক পারবে না। সেজন্য আমরাও কখনোই শেখ হাসিনার অধীনে কোন নিরর্বাচনে অংশগ্রহন করবো না্ ।  আমরা সেজন্যই রোডম্যাপ বা রাস্তার মাপ চাই না্ । সহায়ক সরকার চাই।

হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, যুগ্ন-মহা সচিব বিএনপি

ইসির সংলাপ শুরু ৩০ জুলাই থেকে মোজায় দুর্গন্ধ? জানুন কিছু টিপস অটোরিকশা-প্রাইভেটকার সংঘর্ষে মা-ছেলেসহ নিহত ৩ বৃহস্পতিবার দিনটি আপনার কেমন যাবে ? শ্যাম্পু ব্যবহারে আপনার যৌনজীবনে বিপদ আসছে... এক লাখ ১ থেকে পাঁচ লাখে আবগারি শুল্ক ১৫০ নবম শ্রেণির ছাত্রীকে দলবেঁধে গণধর্ষণ আটক ২ ঈদের দিন নিঝুম দ্বীপে বেড়াতে নিয়ে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ! পাঁচ তলা থেকে পড়েও যেভাবে বেঁচে গেলো শিশুটি শাহজাদপুরে বাসচাপায় ৩ জন নিহত খুশকি দূর করার কিছু সহজ উপায়! সৌন্দর্যপিপাসুদের ভিড়ে মুখরিত তাহিরপুরের দর্শনীয় স্থানগুলো তুলসী পাতার অসাধারণ কিছু উপকারিতা ঘুমের মধ্যে কেঁদে ওঠেন যে কারণে! কেমন কাটলো অপু বিশ্বাসের ঈদ? অটোরিকশা বিদ্যুতায়িত: দুই ভাতিজাসহ চাচা নিহত ঈদ আমেজের পর সরগরম হয়ে উঠতে পারে রাজনীতির মাঠ নৌকা বিসর্জনের বাজনা বাজছে : রিজভী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে যাবে বিএনপি: দাবি তোফায়েলের আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য গণতন্ত্রের জন্য হুমকিস্বরুপ মৃত্যুর ২৮ বছর পর কবর থেকে তোলা হচ্ছে সালভাদরের দেহ গাড়ি দুর্ঘটনা: বেঁচে ফিরলেন রাজ্জাক খাগড়াছড়িতে বাস উল্টে মা-মেয়েসহ নিহত ৩ আবারও বড় ধরনের সাইবার হামলা নাফ নদীতে নৌকাডুবি, নিখোঁজ ৩ শিশু বুধবার দিনটি আপনার কেমন যাবে? কুষ্টিয়ায় বাস-পিকআপ সংঘর্ষে নিহত ২ বরিশালে সাংবাদকি লিটন বাশারের ইন্তকোল গুগলকে ২৭০ কোটি মার্কিন ডলার জরিমানা দেশ এখন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে: দুদু এই প্রথম র‍্যাংকিংয়ের সেরা দশে সাব্বির টুইটে মোদিকে ইভানকার ধন্যবাদ তাহলে ২ সন্তানের মাকে বিয়ে করেছেন ধোনি? ছবির প্রলোভনে লালসার শিকার যেসব নায়িকারা ১৫ মিনিটেই ত্বক ফর্সা করার উপায়! (ভিডিও) কে হবেন ভারতের নতুন কোচ? একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-৫: ময়মনসিংহের ২৪ আসনে আ'লীগের ১৩৬ প্রার্থী প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগের প্রস্তুতি নিতে রিজভীর আহ্বান গায়িকা-নায়িকাদের প্রেম-বিয়ে ও ভাঙন 'নির্বাচনকালে শেখ হাসিনাই সরকার প্রধান থাকবেন' ক্যান্সারের কোষ নষ্ট করবে পেঁয়াজ বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করতে মোদিকে ট্রাম্পের আহ্বান সিরাজগঞ্জে ঈদগাহে সংঘর্ষে আহত ২ জনের মৃত্যু কেন অভিনয় ছেড়েছিলেন শাবানা? জানুন নেপথ্যের কাহিনী দিল্লিতে চায়ের দোকানে বিস্ফোরণ, নিহত ৫ ঈদের রাতে নগরীতে অস্ত্রসহ ৫ ছিনতাইকারী আটক ত্রিশালে পিকআপ চাপায় দাদা-নাতি নিহত উৎসবে খাবারের পর স্লিম থাকার ৭ টি টিপস নিখোঁজ বিজিবি জওয়ানকে উদ্ধারে জোর তৎপরতা ১১ মাসে বিদেশি নিট বিনিয়োগ বেড়েছে ২৮৫.৪২%