ঢাকা, রবিবার ২২শে অক্টোবর ২০১৭ - 

পাহাড়ে মানবিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 শনিবার ১৭ই জুন ২০১৭

চট্টগ্রাম: চার পার্বত্য জেলায় পাহাড় ধসে নিহত দেড়শ জন ছাড়িয়েছে৷ আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধাীন অনেকে। গৃহহীন হওয়ার সংখ্যাও কম নয়। সব মিলিয়ে স্বজন আর সম্বল হারা হয়ে যারা বেঁচে আছেন, তারাও চরম সংকটে৷ খাদ্য, চিকিৎসা, আশ্রয়, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সংকট এবং বিপর্যস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে সেখানে মানবিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷


রাঙামাটি এবং বান্দরবানে ২৫টি আশ্রয় কেন্দ্রে অন্তত পাঁচ হাজার নারী, পুরুষ ও শিশু আশ্রয় নিয়েছে৷ কিন্তু এসব আশ্রয় কেন্দ্রে বিদ্যুৎ ও পানি সরকরাহ না থাকায় এক ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে৷ জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে খাবার সরবরাহ করা হলেও তা পর্যাপ্ত নয় বলে আশ্রয়গ্রহণকারীদের দাবি৷ আর যারা আশ্রয় কেন্দ্রে যাননি, তাদের কাছে ত্রাণ পৌঁছাচ্ছে না বলেও অভিযোগ রয়েছে৷ কোথাও কোথাও প্রয়োজন বিবেচনা না করে খাবারের পরিবর্তে শুধু খাবার স্যালাইন পাঠানোর অভিযোগও রয়েছে৷


রাঙামাটি টিভি স্টেশন কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মামুন নামের একজন সংবাদিকদের জানান, ‘‘আমাদের কাছে কোনও খাবার পৌঁছায়নি৷ এমনকি পানি পর্যন্ত পাইনি৷ টিভিস্টেশন কেন্দ্রে একজন এসে কিছু খাবার স্যালাইন ও ব্যথানাশক ওষুধ দিয়ে গেছেন৷''


বিএডিসি ভবন কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া আনোয়ার নামের একজন বলেন, ‘‘শুকনা খাবার চিড়া-মুড়ি দিয়ে গেছে৷ এগুলো পেয়েছি৷ তবে এখনও (শুক্রবার দুপুর ৩টা পর্যন্ত) দুপুরের খাবার পাইনি৷ এলাকাবাসীর উদ্যোগে আমাদের জন্য ইফতার ও রাতের খাবারের ব্যবস্থা হচ্ছে৷''


পাহাড় ধসে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে রাঙামটি এলাকায়৷ সেখানে পাঁচ সেনা সদস্যসহ ১১০ হন নিহত হয়েছেন৷ চট্টগ্রাম থেকে রাঙামাটি শহর পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সড়ক ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ আর রাঙামাটি থেকে প্রত্যন্ত এলকার সড়ক যোগাযোগ ধস ও টানা বৃষ্টির কারণে ব্যবহারের অযোগ্য এবং ঝুকিপূর্ন হয়ে পড়েছে৷


সরবরাহ না থাকায় রাঙামাটিতে জ্বালনি তেলের সংকট দেখা দিয়েছে৷ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত যে জ্বালানিতেল ছিল, তা পেট্রোল পাম্প মালিকরা রেশনিং করে প্রায় দ্বিগুন দামে বিক্রি করেছেন৷ এরপর পাম্পগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়৷ কেরোসিন তেলের সংকট পরিস্থিতিকে ভয়াবহ করে তুলেছে৷ আর এলপি গ্যাসের সংকট ও চড়া দামের কারণে রান্নাও করা যাচ্ছে না৷ বিদ্যুৎ না থাকায় মোবাইল ফোনের চার্জও দেয়া যাচ্ছে না৷ ফলে ওইসব এলাকার মানুষ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন৷ বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যাচ্ছে৷ নতুন করে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে৷ এমন পরিস্থতিতেও পাহাড়ে ঝুঁকি নিয়ে বসবাসকারীদের সবাইকে সরিয়ে নেয়া হয়নি এখনো৷


ওইসব এলাকায় চালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য এবং শাকশব্জির দামও বেড়ে গেছে৷ নাআ ধরণের গুজব আর আতঙ্কের মধ্যে আছেন সেখানকার লাখ লাখ মানুষ৷


পাহাড় ধসে আহতদের দ্রুত জরুরি চিকিৎসা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ৪৮৩টি মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে৷ এসব টিমের সদস্যরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছেন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা করছেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ৷ আর ত্রাণ ও  দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ পর্যন্ত ৫০০ মেট্রিক টন চাল, ১২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে৷ চার জেলায় মোট ১৮টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে৷ নিহতদের প্রতি পরিবারকে ২০ হাজার এবং আহতদের ১০ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে৷  সেই সাথে জেলা প্রশাসকদের কাছে আগে থেকেই পর্যাপ্ত ত্রাণ আছে, যা তারা প্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারবেন বলে মন্ত্রণালয়ের দাবি৷


এছাড়া যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আরো ৫০ লাখ টাকা এবং ৫০০ বান্ডিল টিন বরাদ্দের কথা জানিয়েছেন৷


রাঙামটির জিয়াউল হক জিয়া বলেন, ‘‘পরিস্থিতি এখনো ভয়াবহ৷ আশ্রয়কেন্দ্রে একদিনের মধ্যে মানুষ দ্বিগুন হয়ে গেছে৷ জেলা প্রশাসক বলছেন, ত্রাণ নিয়ে লাভ নাই৷ কারণ, তারা কীভাবে রান্না করে খাবে? সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার কারণে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে গছে৷ বিদ্যুৎ ও জ্বালানি তেলের সংকট আছে৷''


রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মানজারুল মান্নান বলেন, ‘‘আমরা পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা করছি৷ আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে দুই বেলা রান্না করা খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে৷ এরপর আমরা পুনর্বাসনের কাজ শুরু করব৷ আমরা চিকিৎসা সেবাকেও গুরুত্ব দিচ্ছি৷''


তিনি জানান, ‘‘কিছু অসাধু ব্যবসায়ী খাদ্য মজুদ করে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়েছিল৷ তারা এই দুর্যোগেও মুনাফা করার লোভ ছাড়তে পারেনি৷ তবে আমরা এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি৷ কাপ্তাই থেকে লঞ্চ চলাচল শুরু করে খাদ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করছি৷''



Advertisement
রিয়ালের সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান আরও বাড়াল বার্সা ‘হলফনামার বিধান বাতিল চাওয়া মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ নারীরা বিনামূল্যে পাবেন টেলিটকের ২০ লাখ সিম মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দেখাতে গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসকের অন্যন্য উদ্যোগ ডিএসইতে ৫৫% কোম্পানির দরপতন বৈঠক ডেকেছেন খালেদা জিয়া ম্যাশের হাফ সেঞ্চুরি কেপিসিএলের পর্ষদ সভা ২৯ অক্টোবর অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা: খালেদা জিয়ার আবেদন নাকোচ হাইকোর্টে Put more pressure on Myanmar: Sheikh Hasina Parineeti Chopra's desi diva look ‘ইসিকে দিয়ে নীল নকশা আঁটছে আ’লীগ’ নাইজারে বন্দুকধারীদের হামলা, ১৩ পুলিশ নিহত কাল থেকে আবার মিলবে ইলিশ ঐশীর যাবজ্জীবন দণ্ডের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ 'উল্টো পথে গাড়ি চালালে কাউকে ছাড় দেব না' হার্বাল ওষুধ লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায় ন্যাশনাল ফিড মিলের পর্ষদ সভা ২৮ অক্টোবর দেশ গার্মেন্টেসের পর্ষদ সভা ২৮ অক্টোবর মসুল-রাক্কায় গণকবরে ভারতীয় রয়েছে কিনা জানতে ডিএনএ সংগ্রহ টাইটানিকের শেষ চিঠি নিলামে রেকর্ড দামে বিক্রি ১৫ দিনে সংশোধন করা যাবে জাতীয় পরিচয়পত্র রাতে খালেদা-সুষমার বৈঠক ‘নানী-দাদীদের’ সুন্দরী প্রতিযোগিতা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চাপ দিন ঢাকা-উত্তর-দক্ষিণবঙ্গ রেল চলাচল স্বাভাবিক একসঙ্গে সেলফি তুলে কথা রাখলেন আলিয়া-জ্যাকলিন দেশের সব রুটে নৌযান চলাচল শুরু যেখানে অন্যের বউ চুরি করা বৈধ! ঢাকার সঙ্গে উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন মায়ের জিন-ই ঠিক করে সন্তান মেধাবী হবে কি না! ছেলেদের যে ১০টি ভুলে প্রেম এসেও ভেঙে যায় বন্ধুর প্রাক্তন প্রেমিকার সঙ্গে প্রেম করা কি ভাল? স্বামীকে সুখে রাখার ১০টি টিপস ব্রণ থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় ভারত মহাসাগরে চীনা সাবমেরিন! দক্ষিণে সুখোই পাঠাল ভারত কেমন যাবে আপনার রোববার দিনটি? পদ নেই, তবুও পদোন্নতি! সুস্থ থাকতে মাংসের বদলে খেতে পারেন মাশরুম উন্নত দেশ গড়তে আ.লীগকে ক্ষমতায় রাখার আহ্বান জয়ের বৃষ্টি কাঁদা-মাটিতে একাকার রোহিঙ্গা ক্যাম্প ১৬ বছর বয়সেই মন ভেঙে যায় সালমান খানের! আফগানিস্তানে মিলিটারি বাসে হামলা: নিহত ১৫ ১০ ঘন্টা পর পাটুরিয়া -দৌলতদিয়া রুটে ফেরি চলাচল শুরু রবিবার ৩৩ পর্যবেক্ষকের সঙ্গে সংলাপে বসছে ইসি সম্পত্তি নিয়ে পাকিস্তানি ‘আত্মীয়’র সঙ্গে বিবাদে জড়ালেন সাইফ সাভারে সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যানের মত বিনিময় 'ভাই' সেজে প্রেমিকার শ্বশুরবাড়িতে হাজির প্রেমিক, অতঃপর...! সোমবার দুপুরে সুষমা-খালেদা একান্ত বৈঠক