ঢাকা, বুধবার ১৬ই আগস্ট ২০১৭ - 

ষোড়শ সংশোধনী: উত্তাপ থামছেই না

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 শুক্রবার ১১ই আগস্ট ২০১৭

ঢাকা: সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়কে ইস্যু করে বিচারবিভাগ, সরকার ও রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে শোরগোল শুরু হয়েছে। এই মুহূর্তে ‘টক অব দি কান্ট্রি’ হিসেবে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে আপিল বিভাগের রায় রাজনৈতিক অঙ্গনে উত্তাপ বাড়িয়ে চলেছে।


রায় নিয়ে প্রধান বিচারপতির মন্তব্যকে কেন্দ্র করে পাল্টা বিবৃতির ঝড় উঠেছে। বিশেষত আইন কমিশনের চেয়ারম্যান সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক এ রায়কে অপরিপক্ব, পূর্বপরিকল্পিত ও অগণতান্ত্রিক বলে মন্তব্য করেছেন। তার এ বক্তব্যেল পর সোচ্চার হয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতারাও। ক্রমেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছেন তারা।


বৃহস্পতিবার ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের বিষয় নিয়ে একে একে কথা বলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদসহ আরো অনেকেই।


আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি, মাননীয় প্রধান বিচারপতির রায়ে আপত্তিকর ও অপ্রাসঙ্গিক বক্তব্য আছে, সেগুলো এক্সপাঞ্জ করার উদ্যোগ আমরা নেব।’ আর আদালতের রায়ের বক্তব্য কীভাবে সরকার বাদ দিতে পারে, সে বিষয়ে কিছু উল্লেখ না করে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নিশ্চয়ই চিন্তা ভাবনা করছি যে, এই রায়ের রিভিউ করা হবে কি না? আমরা এখনো কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হইনি। কারণ, রায়ের খুটিনাটি বিষয়গুলো নিবিড়ভাবে পরীক্ষানিরীক্ষা করা হচ্ছে।


এদিকে খাদ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য কামরুল ইসলাম ঢাকা আইনজীবী সমিতি ভবনের জিল্লুর রহমান মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের আলোচনা সভায় প্রধান বিচারপতির অপসারণ দাবি করেছেন।


র্তমান সংসদ ন্যায়সঙ্গতভাবে জনগণের ভোটে গঠিত হয়েছে বলে মন্তব্য করে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘যারা বর্তমান সংসদকে ইমম্যাচিউরড বলেন, তারাই ইমম্যাচিউরড। যারা বর্তমানে বিচারকের আসনে বসেছেন, তারা ইমম্যাচিউরড। নির্বাচনের পর সারা বিশ্ব আমাদের স্বীকৃতি দিয়েছে। সারা বিশ্বের সংসদ এই সংসদকে বৈধতা দিয়েছে। এই সংসদ নিয়ে প্রশ্ন তোলার অধিকার তাদের নেই।’ বুধবার বিকেলে রাজধানীর বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত বিএমএ মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।


তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের একটি রায়ে প্রধান বিচারপতি বলেছেন, কারও একক নেতৃত্বে এ দেশ স্বাধীন হয়নি। আমি প্রশ্ন করতে চাই, এ দেশের স্বাধীনতার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু ছাড়া অন্য আর কে ছিলেন?’ ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘আজ যারা বিচারকের আসনে আছেন, তারা এক সময় আমাদের সঙ্গে কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন। আজ তারা সবাই ম্যাচিউড আর আমরা হলাম ইমম্যাচিউড! পৃথিবীর কোন আইনে এসব আছে? আমার কাছে পৃথিবীর সব আইনের বই আছে। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লেখাপড়া করে এসেছি। আমরা সংবিধান প্রণয়নে কাজ করেছি। অসংখ্য আইন প্রণয়ন করেছি। বর্তমান সংসদের অধীনেই বিচারকদের বেতন বৃদ্ধি হয়েছে, শতাধিক আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। বর্তমান সংসদ সম্পূর্ণ সাংবিধানিক। ইন্টারপার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাংলাদেশের একজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। আর একজন বিচারপতি বলেন, এই সংসদ ইমম্যাচিউরড!’


যারা অনির্বাচিত সরকারকে ক্ষতায় আনতে চায় তারাই রাজনীতিবিদদের ছোট করা চেষ্টা করছে বলে মন্তব্য করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাজনীতিবিদদের ছোট করতে চান কারা? যারা সামরিক শাসন চান তারা। রাজনীতিবিদদের ছোট করতে চায় কারা? যারা অনির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতায় আনতে চান, তারা।’


আওয়ামী লীগের প্রবীণ এই নেতা বলেন, বাংলাদেশে যখন সংবিধান প্রণয়ন হয় তখন আমি সেই কমিটিতে ছিলাম। সংবিধানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচনের বৈধতা দেয়া আছে। একটি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন বৈধ হলে একাধিক আসনেও বৈধ।’


বিচারপতিদের ইমপিচমেন্ট প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশে বিচারকদের ইমপিচ করে সংসদ। ব্রিটেনের অ্যাক্ট অব সেটেলমেন্ট-১৯০১’ অনুসারে সংসদের হাতে এ ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। সংসদীয় গণতন্ত্রের সব দেশেই এ আইন কার্যকর। ভারত, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশেও বিচারকদের ইমপিচ করে সংসদ।’


বিচারপতিদের সমালোচনা করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাজনীতিবিদদের ছোট করতেই ষোড়শ সংশোধনীর রায়ে অনাকাঙ্ক্ষিত বক্তব্য সংযুক্ত করা হয়েছে। একটি গোষ্ঠী সামরিক শাসনের পক্ষে এসব করছে। তারা বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানাতে চায়। ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর বঙ্গবন্ধুর রক্তের ওপর দিয়ে বিচারপতি সায়েম রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণ করেন। এরশাদ ক্ষমতা নেয়ার আগেও আরেকজন বিচারপতি ক্ষমতায় আসেন। আজ যে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের কথা বলা হচ্ছে, তাও সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের সৃষ্টি।’


একই আলোচনা সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘জাতির কয়েকজন বেঈমান যখন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে, চার জাতীয় নেতাকে হত্যা করেছে, তখন একটি কালো আইন করে হত্যাকারীদের নিরাপত্তা দেয়া হয়েছে, তখন কোথায় ছিলেন আদালত? কোথায় ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট, কোথায় ছিলেন বিচারপতিরা।’ জাতীয় সংসদের সাবেক স্পিকার রাজ্জাক আলীর উদ্ধৃতি দিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘বিচারপতিদের হাত এত লম্বা নয় যে, তারা সংসদে হাত দিতে পারেন। এই সংসদ থেকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করা হয় আর রাষ্ট্রপতি বিচারপতি নির্বাচন করে থাকেন। তাই সংসদ নিয়ে ধৃষ্টতা দেখানোর অধিকার কারও নেই।’


তবে রায় নিয়ে সরকারের গঠনমূলক সমালোচনাকে স্বাগত জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘গঠনমূলক সমালোচনার বাইরে গিয়ে যদি কেউ সমালোচনা করেন তাহলে বিচার বিভাগ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। সরকার বা বিরোধী দল কারও ফাঁদে পড়বো না। তাই গঠনমূলক সমালোচনা গ্রহণযোগ্য।’


অবশ্য চুপ নেই বিএনপিও। বিভিন্ন সময় সুপ্রিম কোর্টের পক্ষে বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী লীগের সমালোচনা করছে দলটি।



ইসলামী ব্যাংক ও এক্সপ্রেস মানির স্পেশাল প্রমোশনাল প্রোগ্রাম উদ্বোধন বড়পুকুরিয়ায় ক্ষতিগ্রস্থদের বিক্ষোভ উখিয়ায় ২১৬০ পিস ইয়াবা সহ ২ পাচারকারী আটক ২০ হাজার ইয়াবা সহ আটক যুবলীগ নেতা আ’লীগ শান্তি সম্প্রীতি উন্নয়নে বিশ্বাস করে ৭ মাসে ওয়ালটনের ফ্রিজ বিক্রি বেড়েছে ৩০ শতাংশের বেশি 'সাম্প্রদায়িক শক্তিকে রুখতেই সরকারের ধারাবাহিকতা দরকার' ওয়াইল্ড কার্ড পেলেন শারাপোভা সাপাহারে ৭টি বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে প্রায় ৩ হাজার পরিবার পানি বন্দি বন্যা দুর্গতদের জন্য সরকারের ত্রাণ তৎপরতা নেই: রিজভী ষোড়শ সংশোধনী রায়ের পক্ষে-বিপক্ষে আইনজীবীদের কর্মসূচি হ্যাথাওয়ের নগ্ন ছবি ফাঁস, সামাজিক মাধ্যমে ঝড় মেয়ে হত্যায় পরিবার থেকে মামলা করতে না দেওয়ায় বাবার আত্মহত্যা দরপতনের শীর্ষে সানলাইফ ইন্স্যুরেন্স উত্তরে কমছে, মধ্যাঞ্চলে বাড়ছে বন্যার পানি জয়ার জীবনে বিশেষ একজন আছেন! বিশ্বের সেরা বাসযোগ্য শহর কোনটি, জানেন কী? বাংলাদেশ, ভারত, নেপালে বন্যায় নিহত ২২১ সবাইকে বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান খালেদা জিয়ার মিরসরাইয়ে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ১ গোপালগঞ্জে আইনজীবীদের বিক্ষোভ মিছিল ভোলা জেলা দোকান কর্মচারী ইউনিয়নের সভা অনুষ্ঠিত ‘চালের দাম নিয়ে কোনরকম হা-হুতাশ নাই’ 'শাস্তিটা বেশিই হয়ে গেছে' ক্ষেপেছেন জিদান! একসময় মৌসুমী-শাবনূর-সালমানের ভিউকার্ড জমাতেন পূর্ণিমা! ডিএসই-সিএসইতে দরপতন ‘শুনেছি আপনি নির্বাচন করবেন’ অকালে বুড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধে খেতে হবে ২৫টি খাবার ট্রাক চাপায় দুই পথচারীর মৃত্যু ফিলিপাইনে মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত ৩২ সবার অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচন চায় গণমাধ্যম ফেসবুকে ছবি শেয়ার করে সমালোচনার মুখে পরীমনি ! ‘ভাত’ খেতে চাওয়ায় মাকে মেরে বের করে দিল ছেলে! আরও বজ্রসহ বৃষ্টির আশঙ্কা সূচক পতনে লেনদেন কিমের হুমকিতে গুয়ামে হঠাৎ আপৎকালীন সতর্কতা জারি ! সানলাইফ ইন্স্যুরেন্সের প্রিমিয়াম আয় বেড়েছে সম্প্রতি বাজারে আসা সেরা ১০ স্মার্টফোন স্ত্রীর ব্যাগে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে.... মেয়র আনিসুল হক ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত ম্যানইউয়ের হয়ে ফুটবল খেলবেন বোল্ট! নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় বাড়ল ফনিক্স ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লভ্যাংশ ঘোষণা ‘রেহান কেন আমার আর হাবিবের মাঝে প্রবলেম করছে?’ ভারতে ব্লু হোয়েল গেম নিয়ে আতঙ্ক, বন্ধের নির্দেশ মোদি সরকারের আসছে গুগলের নতুন অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণ 'ও' প্রশ্নটি করেই মনে মনে লজ্জা পেলাম নেপালে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯১ দর বাড়ার কারণ নেই ২ কোম্পানির ফের আসতে শুরু করে করেছে রোহিঙ্গারা