ঢাকা, শনিবার ২১শে অক্টোবর ২০১৭ - 

বিচারপতি খায়রুল হকের বক্তব্যে কার লাভ, কার ক্ষতি?

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 শুক্রবার ১১ই আগস্ট ২০১৭

সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হকের কাছে গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী?

ঢাকা: সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া রায় সর্বসম্মত। মানে প্রধান বিচারপতিসহ আপিল বিভাগের সাতজন বিচারপতি ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে এ রায় দিয়েছেন। কিন্তু আইন কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে সংবাদ সম্মেলন ডেকে রায়ের সমালোচনা করতে গিয়ে খায়রুল হক এ রায়কে “অগণতান্ত্রিক” হিসেবে অভিহিত করেছেন।


তিনি প্রধান বিচারপতি থাকাকালে ২০১১ সালে আপিল বিভাগ ১৩তম সংশোধনী তথা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক এবং বাতিল বলে ঘোষণা করে। মূল রায় তিনি লেখেন। তাঁর সঙ্গে একমত পোষণ করেন তিনজন। বাকি তিনজন দ্বিমত পোষণ করেন এবং তাঁরা সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে এ ব্যবস্থা রাখার পক্ষে মত দেন।


ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রায়কে যিনি অগণতান্ত্রিক বলছেন, তিনি কি বলবেন ১৩তম সংশোধনী বাতিল রায়ের গণতান্ত্রিক চরিত্রটা কেমন?


সংবিধানের ১৩তম সংশোধনী বাতিল রায়ে তিনি “উদ্ভট” একটি সুপারিশ করেছিলেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক এবং বাতিল বলে ঘোষণা করেও সেটিকে আরও দশ বছর বাঁচিয়ে রাখার পরামর্শ দিয়েছিলেন। যাতে দশম এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার অধীনে হতে পারে।


তাঁর এমন পরামর্শ সে সময়কার সরকার এবং জাতীয় সংসদ আমলে নেয়নি। বরং এ পরামর্শকে “উদ্ভট” হিসেবে আখ্যা দেয়। ২০১১ সালের মে মাসে সে সময়ের প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক ১৩তম সংশোধনী তথা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক এবং বাতিল বলে ঘোষণা করেন। পরের মাসেই ১৫তম সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সংবিধান থেকে বিলুপ্ত করা হয়। খায়রুল হকের পূর্ণ রায়ের প্রতি মানুষের আর কোন আগ্রহ থাকেনি। প্রধান বিচারপতি হিসেবে অবসরে যাওয়ার ১৬ মাস পর ২০১৩ সালের নভেম্বরে পূর্ণ রায় প্রকাশিত হয়। অবসরে যাওয়ার এতোদিন পর কোন রায়ে স্বাক্ষর করা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল তখন।


ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া রায়কে সমালোচনা করতে খায়রুল হক সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তা শুধু অযৌক্তিক নয়, হাস্যকরও বটে। তিনি দাবি করেছেন ৭০ অনুচ্ছেদের কারণে এমপিরা সংসদে দায়িত্ব পালনে কোন বাধার সম্মুখীন হোন না। তাঁরা স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারেন বলে খায়রুল হক ব্যাখ্যা দিয়েছেন। কিন্তু এক দশক আগে তিনি যখন হাইকোর্টের বিচারপতি ছিলেন তখন এক রায়ে মতামত দেন যে, ৭০ অনুচ্ছেদের বিধিনিষেধ এমপিদেরকে দলের বন্দিতে পরিণত করেছে।


বর্তমান সংসদ খুব কার্যকর বলে তিনি যে দাবি করেছেন এমন দাবি সরকার দলের কোন এমপি বা মন্ত্রীও সহজে করবেন না। বর্তমান সংসদকে সমর্থন করে যুক্তি দাঁড় করানো কী তিনি তাঁর নৈতিক দায়িত্ব মনে করেন?


১৩তম সংশোধনীর রায়ে তিনি বলেন যে, “অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিঃসন্দেহে সংবিধানের একটি Basic structure (মৌলিক কাঠামো)।” তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিলের পর দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা দেয়। বড় একটি রাজনৈতিক দলসহ অধিকাংশ দল সে সময়ের সরকারের অধীনে সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় একতরফা নির্বাচন, যাতে রেকর্ড সংখ্যক ১৫৩ জন এমপি বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়ে যান। বাকি ১৪৭ আসনে ভোট গ্রহণ ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা। এমন নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সংসদ উপহার দেওয় আরও বিস্ময়। প্রধান বিরোধী দলের কয়েকজন এমপিকে মন্ত্রী বানানো হয়। তা না হলে তাঁরা বিরোধী দলের বেঞ্চে বসতে নারাজ। প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানকে বানান হয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত। খোদ বিরোধী দলের সদস্যরাই নানা সময়ে তাঁদের পরিচয় সংকটের কথা বলেছেন। একটি ভালো নির্বাচন না হওয়াতেই এমন একটি সংসদ সম্ভব হয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন যদি সংবিধানের একটি মৌলিক কাঠামো হয়ে থাকে তাহলে গত নির্বাচন কি সংবিধানের সেই মৌলিক কাঠামোতে আঘাত করেনি? আশা করি, বিচারপতি খায়রুল হক কোন একদিন এ প্রশ্নের জবাব দিবেন।


সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া রায়ের সমালোচনা করতে গিয়ে বিচারপতি খায়রুল হক বর্তমান প্রধান বিচারপতিকে আক্রমণ করেছেন। এ প্রসঙ্গে তাঁর নিজের লেখা ১৩তম সংশোধনীর রায়ের কিছু লাইন উল্লেখ করা যেতে পারে। তিনি লিখেছেন, “কোন রায়ই প্রধান বিচারপতি একক সিদ্ধান্তে প্রদান করেন না, কিন্তু সেই রায় যদি কোন রাজনৈতিক দলের স্বার্থের বিপক্ষে যায় তাহা হইলে আদালত ও আদালত প্রাঙ্গণে উক্ত রাজনৈতিক দলের সমর্থক আইনজীবীগণ প্রচণ্ড আলোড়ন সৃষ্টি করেন।”


বাস্তবে কী ঘটলো। রাজনৈতিক দলের সমর্থক আইনজীবীগণ যতোটা না আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন তার চেয়ে বহুগুণ আলোড়ন সৃষ্টি করলেন বিচারপতি খায়রুল হক নিজেই সংবাদ সম্মেলন ডেকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এবং প্রধান বিচারপতির সমালোচনা করে। যে ভাষায় সমালোচনা করেছেন তেমন “জ্বালাময়ী” ভাষা কোন রাজনৈতিক নেতা এখন পর্যন্ত ব্যবহার করেননি। প্রধান বিচারপতি এবং সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমরা সেসব ভাষা আর পুনর্মুদ্রণ করতে চাই না। তাঁর বক্তব্য আদালত অবমাননার শামিল বলে অভিযোগ উঠেছে।


বিচারপতি খায়রুল হক এক নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। যেসব ভাষা ব্যবহার করেছেন এবং যে কতিপয় উদ্ভট ব্যাখ্যা দিয়েছেন তাতে এই রায়ের বিরোধিতাকারীরা সন্তুষ্ট হতে পারেন। কিন্তু নিজেকে এমন স্তরে নামিয়ে আনলেন যা অনেকেই কল্পনাও করতে পারেননি। অতীতে যারা প্রধান বিচারপতি ছিলেন তাঁদের কেউ এমন নজীর স্থাপন করেননি।


আইন কমিশনের প্রধান হয়ে সংবাদ সম্মেলন ডেকে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে তিনি শুধু নীতি-নৈতিকতা বিরুদ্ধ কাজ করার দায়ে নয়, আইন কমিশনের আইন লঙ্ঘনের দায়েও অভিযুক্ত হতে পারেন। কেননা, ১৯৯৬ সালের আইন কমিশনের আইনে কমিশনের যেসব কাজ করার কথা সেসবের মধ্যে সংবাদ সম্মেলন ডেকে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে কটাক্ষ করে বক্তব্য দেওয়ার কোন কাজ তাঁকে বা কমিশনকে দেওয়া হয়নি। এমন কাজ তাঁর এখতিয়ার বহির্ভূত। সাবেক প্রধান বিচারপতি আশা করি ভেবে দেখবেন তাঁর বক্তব্যে কে বা কারা কতোটুকু লাভবান হলেন, কার কতোটুকু ক্ষতি হলো।

উৎসঃ   ডেইলি স্টার


প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন




Advertisement
রবিবার ৩৩ পর্যবেক্ষকের সঙ্গে সংলাপে বসছে ইসি সম্পত্তি নিয়ে পাকিস্তানি ‘আত্মীয়’র সঙ্গে বিবাদে জড়ালেন সাইফ সাভারে সাংবাদিকদের সাথে ইউপি চেয়ারম্যানের মত বিনিময় 'ভাই' সেজে প্রেমিকার শ্বশুরবাড়িতে হাজির প্রেমিক, অতঃপর...! সোমবার দুপুরে সুষমা-খালেদা একান্ত বৈঠক দেশে দুর্যোগ চলছে আর গণতন্ত্রে মহাদুর্যোগ চলছে: মওদুদ ‘রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে ক্ষমতাসীনদের নৈতিক অবস্থান নেই’ রোহিঙ্গাদের সাহায্যে কারও কাছে হাত পাতিনি: জয় টপলেস হতে আপত্তি নেই কারিশমার তালতলীতে বেরীবাঁধ ভেঙ্গে ৮গ্রাম প্লাবিত : ২০ হাজার মানুষ পানি বন্দি মধ্যরাতে পরকীয়া প্রেমিকাসঙ্গ, কলেজ অধ্যক্ষকে গণধোলাই ভোলায় নিজের বাল্য বিয়ে ঠেকিয়ে দিলো রেশমা ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠার স্বার্থে আমরা নির্বাচনে যাবো: দুদু গোপনে ইসরাইল সফর করলেন সৌদি যুবরাজ সালমান! যারা অতিরিক্ত কাঁদেন তারা কেমন মানুষ? ভারতে ট্রাক উল্টে নিহত ১০ বন্ধ হচ্ছে টিএসসি’র কার্যক্রম নভেম্বরে চলবে দেশব্যাপী সাঁড়াশি অভিযান পশ্চিমবঙ্গে ইলিশের বন্যা, বাংলাদেশে নিষিদ্ধ মালয়েশিয়ায় ভূমিধসে নিহত ৩, বাংলাদেশিসহ নিখোঁজ ১১ কিরকুকের সম্পূর্ণ দখল নিয়েছে ইরাকি বাহিনী বৃষ্টির দিনে বাসায় যেভাবে সময় কাটাবেন খালেদা জিয়া ষড়যন্ত্র করে দেশে ফিরেছেন: সেতুমন্ত্রী ‘স্টুডেন্ট অব দি ইয়ার’ সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য অক্ষয় নয়, রণবীর সিং সুষমার ঢাকা সফরে বিএনপির সঙ্গে বৈঠকে এজেন্ডার বাইরেও আলোচনা! সিনহার বদলে মিঞা: সঙ্কটের সুরাহা হবে কি? জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে মিশলের ৩৫ পুলিশ নিহত জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের নিন্দা ও প্রতিবাদ কুষ্টিয়ায় বৃষ্টিতে দেয়াল ধসে বৃদ্ধার মৃত্যু রিয়াল মাদ্রিদে ব্রাজিলিয়ান বিস্ময় তরুণ যৌন হেনস্তার জন্য নারীরাও দায়ী, অভিনেত্রীর মন্তব্যে তোলপাড় ‘হার্ভের মতো যৌনলিপ্সু বলিউডেও আছে’ রবিবার জাপানে আছড়ে পড়বে টাইফুন ‘লান’ ইভিএমে বিশেষজ্ঞদের ‘না’ শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ মৃত্যু ঝুকির পরেও ডাক্তারদের বিজনেস বাড়াতে করা হয় সিজার নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তুলছেন আ.লীগ নেত্রী পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষা বন্ধ করবে না উ.কোরিয়া দাম্পত্য জীবনে একঘেয়েমি? জেনে নিন উষ্ণতা ফেরানোর সহজ উপায় প্রেম নিবেদন করবেন? জেনে নিন ভালবাসার ১০টি পৃথিবীবিখ্যাত পংক্তি ধর্ষিতার পরিবারের কাছে 'ভোজ' খাওয়ানোর দাবি গ্রামবাসীর সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত, আজও সারাদেশে ভারি বৃষ্টি প্রেম করে বিয়ে করতে গেলে যে ৭টি ঝামেলায় আপনাকে পড়তে হবে চীনে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানচেষ্টা! রোহিঙ্গাদের দেখতে আসছেন জর্ডানের রানী কাবুলে মসজিদে আত্মঘাতী হামলায় নিহত ৩০ শনিবার দিনটি আপনার কেমন যাবে? আম্বানিদের পার্টিতে অমিতাভের নাতনির মুখোমুখি রেখা, অতঃপর...