ঢাকা, শুক্রবার ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ - 

আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে হঠাৎ তোড়জোড়

প্রাইমনিউজবিডি.কম
 বৃহঃস্পতিবার ১৪ই সেপ্টেম্বর ২০১৭

ঢাকা: জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে গতকাল বুধবার জরুরি বৈঠকের আগে মিয়ানমার অনেকটা আকস্মিকভাবেই জাতিগত নিধনের অভিযোগ অস্বীকার করে আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়েছে। ওই সুপারিশ বাস্তবায়নে একটি কমিটিও ঘোষণা করেছে মিয়ানমার এবং সেটি নিয়ে আজ বৃহস্পতিবারই বৈঠকে বসবে।


পরিস্থিতি সামাল দিতে দেশটির স্টেট কাউন্সেলর নোবেল বিজয়ী অং সান সু চি আগামী মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন। সেই ভাষণে দেশের শান্তি ও জাতিগত পুনর্মিলনের আহ্বান থাকবে। সু চির দপ্তর বলছে, দেশের শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনার কাজে ব্যস্ত সু চি এবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনেও যাচ্ছেন না। ওই অধিবেশনে বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক দেশের নেতারাই রাখাইনে গণহত্যা ও জাতিগত নিধন বিষয়ে সরব হবেন বলে জানা যাচ্ছে।


হাজার হাজার রোহিঙ্গাকে হত্যা এবং লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে দেশ থেকে বিতাড়নের পর আনান কমিশনের সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের ঘোষণা কতটা অর্থবহ এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকার এক কূটনীতিক গতকাল সন্ধ্যায় বলেন, চাপে পড়েই মিয়ানমার এ ঘোষণা দিয়েছে। এর পরও যদি আনান কমিশনের সুপারিশগুলো দ্রুত ও পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয় তাহলে বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন এবং এ সমস্যার স্থায়ী সমাধান নিশ্চিত হতে পারে। আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।


জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বে গঠিত রাখাইন রাজ্য উন্নয়নবিষয়ক পরামর্শক কমিশন তথা আনান কমিশন রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রদান এবং মিয়ানমার ও বাংলাদেশ মিলে যৌথ যাচাইপ্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের নিরাপদে প্রত্যাবাসনের সুপারিশ করেছে। এ ছাড়া রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রশ্নে আনান কমিশনের সুপারিশে ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন অনুযায়ী নাগরিকত্ব যাচাইপ্রক্রিয়া ত্বরান্বিতকরণ এবং এরই মধ্যে নাগরিক হিসেবে যাচাই হওয়া ব্যক্তিদের সব ধরনের অধিকার ও স্বাধীনতা দিতে বলা হয়েছে।


আনান কমিশন মিয়ানমারের নাগরিকত্ব আইনটি আন্তর্জাতিক রীতিনীতি, নাগরিকত্ব ও জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পৃক্ত করার সুপারিশ করেছে। যারা মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি পায়নি তাদের ওই দেশটিতে অবস্থানের বিষয়টি হালনাগাদ করে ওই সমাজের অংশ করে নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।


জাতি-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবার অবাধ চলাচলের সুযোগ দিতে মিয়ানমার সরকারকে আনান কমিশন সুপারিশ করেছে। রাখাইন রাজ্যে উন্নয়ন ও বিনিয়োগ থেকে স্থানীয় জনগোষ্ঠীগুলো উপকৃত হবে বলেও মনে করে আনান কমিশন।


মিয়ানমারের রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় সব গোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের সদস্যদের সম্পৃক্ত করার কথা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুতদের শিবিরগুলো বন্ধ করে সমাজেই তাদের সম্পৃক্ত করার নীতি নেওয়ার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আন্তঃসম্প্রদায় সুসম্পর্ক সৃষ্টি এবং সমাজের সব সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে।


আনান কমিশনের প্রতিবেদনে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সুসম্পর্ক এবং অভিন্ন চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এ ছাড়া ওই কমিশন তার ৮৮ দফা সুপারিশ বাস্তবায়নে মিয়ানমারে কাঠামো সৃষ্টি এবং মন্ত্রী পর্যায়ের কাউকে দায়িত্ব দেওয়ার কথা বলেছে।


মিয়ানমারের ইরাবতী পত্রিকার অনলাইনে গতকাল প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমার সরকার অবিলম্বে আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশাপাশি গত অক্টোবর মাস থেকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা ও জঙ্গি হামলার অভিযোগ তদন্তে দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মিন্ট সুয়ের নেতৃত্বে গঠিত কমিশনের সুপারিশগুলোও সরকার বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ দুটি কাজের জন্য মিয়ানমারের প্রেসিডেন্টের দপ্তর দেশটির সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী উইন মিয়াত আয়ের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। কমিটিতে কো-চেয়ার হিসেবে থাকবেন রাখাইন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নি পু। কমিটিতে স্টেট কাউন্সেলর দপ্তর, সীমান্তবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী, প্রেসিডেন্টের দপ্তরের প্রতিনিধি ছাড়াও স্বরাষ্ট্র, তথ্য, ধর্ম, কৃষি, পরিবহন, শ্রম, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও ক্রীড়া, নির্মাণ এবং সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা থাকবেন।


ওই কমিটির প্রথম অগ্রাধিকার হবে নাগরিকত্ব যাচাইপ্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করা এবং ধর্ম-বর্ণ-নাগরিকত্ব ও লিঙ্গ-নির্বিশেষে সবার জন্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার সমান অধিকার নিশ্চিত করা। এ ছাড়া রাখাইন অঞ্চলে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই ও মাদক নির্মূল করার লক্ষ্যেও কমিটি কাজ করবে।


ওই কমিটি আজ বৈঠকে বসে দুটি কমিশনের সুপারিশগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে এবং যত দ্রুত সম্ভব সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের কাজ শুরু করবে। চার মাস পর পর কমিটি এসংক্রান্ত অগ্রগতি জনগণের সামনে তুলে ধরবে।


জানা গেছে, ভাইস প্রেসিডেন্ট মিন্ট সুয়ের নেতৃত্বে গঠিত কমিশন রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর হত্যা, নিপীড়ন-নির্যাতনের কোনো অভিযোগের প্রমাণ পায়নি। সরকারি প্রতিনিধিদের ওই কমিশন সংঘাতের জন্য দোষ চাপিয়েছিল বিচ্ছিন্নতাবাদী রোহিঙ্গা জঙ্গিগোষ্ঠীর ওপর। অন্যদিকে আনান কমিশনও এ ধরনের গোষ্ঠীকে রাখাইনসহ পুরো মিয়ানমারের শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি হিসেবে অভিহিত করেছে। আনান কমিশনের ৯ জন সদস্যের মধ্যে ছয়জনই ছিলেন মিয়ানমারের বিশিষ্ট নাগরিক।


কূটনৈতিক সূত্রগুলো গতকাল মিয়ানমারের আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের ঘোষণাকে ইতিবাচক উল্লেখ করলেও সতর্ক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। কারণ আনান কমিশনের সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করাও মিয়ানমারের জন্য খুব সহজ হবে না। রাখাইন রাজ্যের পার্লামেন্ট আনান কমিশন গঠন করাকেই প্রত্যাখ্যান করে প্রস্তাব গ্রহণ করেছিল। রাখাইন রাজ্য সরকার সে সময় আনান কমিশনকে আনুষ্ঠানিক কোনো সহযোগিতা দেয়নি।


প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন




Advertisement
রোহিঙ্গাদের রক্ষায় জাতিসংঘে ৫ প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর ভারতে ওমান ও কাতারের ৮ শেখ গ্রেফতার ‘সুন্দরী মেয়েদের তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে মিলিটারিরা’ : তারপর হাত-পা, বুক কেটে ফেলে দেয় মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে যুক্তরাষ্ট্রের চাপ উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বান মেসির ছায়া থেকে বের হতেই বার্সা ছাড়ে নেইমার: ম্যাথিউর অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়ার প্রধান টার্গেট রুট : স্ট্রাউস রাখাইনে মসজিদে আজান দেয়ার ও নামাজ আদায়ের কেউ নেই! সঞ্জয় দত্তকে জুতাপেটা করেন স্ত্রী! রাজধানীতে একই পরিবারের ৫ জন দগ্ধ সুচিকে দেয়া পদক সম্মাননা ফিরিয়ে নেয়ার হিড়িক রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে জরুরিভিত্তিতে প্রয়োজন গাইনী বিশেষজ্ঞ ডাক্তার চাপ উপেক্ষা করে মিয়ানমারকে সামরিক সরঞ্জাম দিচ্ছে ভারত পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নারী: ‘পা ধরে বলেছি কাউকে বলবো না, বাংলাদেশে চলে যাব’ যুবদল নেতা ইমনের নামে ৫৭ ধারায় মামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ। নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে ৩৮তম বিসিএস ‘রিয়া আমার প্যান্ট খোলেননি’ শুক্রবার দিনটি আপনার কেমন যাবে? দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আরাকানের স্বাধীনতা অপরিহার্য: মুফতি ফয়জুল্লাহ রোহিঙ্গাদের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে বিশ্ব মেডিকেলে ভর্তিতে নম্বর কাটার আপিল শুনানি ৩ অক্টোবর টেকনাফ অভিমুখে রোডমার্চে পুলিশের বাধা র‌্যাম্প মডেল থেকে ‘জেএমবির কমান্ডার’ বাণিজ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করলেন রিজভী কাশ্মিরে মন্ত্রীকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড হামলা, নিহত ৩ গোপালগঞ্জে সাঁতার প্রশিক্ষণের উদ্বোধন আমরা জয়ের মুখোমুখি: নোমান ডেসকোর পর্ষদ সভা ২৮ সেপ্টেম্বর এইচটিসির সঙ্গে ১১০ কোটি ডলারের চুক্তি গুগলের তারকা হওয়ার আগেই দেমাগ দেখাচ্ছেন সাইফ কন্যা সারা সূচকের সাথে কমেছে লেনদেনও রাখাইনে রেডক্রসের ত্রাণবহরে বৌদ্ধদের বোমা নিক্ষেপ রোহিঙ্গা মুসলমান গণহত্যার প্রতিবাদে গোপালগঞ্জে মানববন্ধন শেয়ার কিনবে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের পরিচালক দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারী ব্যাক আপ দিবে আইটেল পি ১১ স্মার্টফোন ভারতের আগ্রাসনের জবাবে পরমাণু হামলার হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের বিশ্ব জনমত গড়তে জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই: মির্জা ফখরুল ৩ কোম্পানির লেনদেন চালু রোববার কে এই রহস্যময়ী? শাভেজ 'পত্নী', নাকি ইভাঙ্কার 'বন্ধু'! যৌন সন্ত্রাসের শিকার রোহিঙ্গা নারীরা কী করবে? রাম রহিমের মতোই যৌনতায় আসক্ত ভণ্ডবাবা ফলহারি মহারাজ! আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন ইমরান এইচ সরকার মায়নমারকে চাপ দিতে ভারতের প্রতি ওবায়দুল কাদের আহ্বান বেগুনের যত স্বাস্থ্য উপকারিতা! প্রথম ঘণ্টায় লেনদেন ১৯৪ কোটি টাকা আমরা নেটওয়ার্কসের শেয়ার বিওতে গণহত্যার দায়ে বার্মিজ সেনাবাহিনীকে সব ধরনের সহযোগিতা স্থগিত করল যুক্তরাজ্য অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে চট্টগ্রাম বিএনপি রোহিঙ্গা বিতারণের নীলনকশা চূড়ান্ত হয় ১০ দিন আগেই শ্রদ্ধার বিরুদ্ধে প্রতারণা মামলা