মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শনিবার, ১৭ মার্চ, ২০১৮, ০৩:১১:৪৫

‘সুবর্ণ জয়ন্তীর আগেই দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলব’

‘সুবর্ণ জয়ন্তীর আগেই দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলব’

ঢাকা : আমরা এক ধাপ পিছিয়ে ছিলাম,  বাংলাদেশ এখন আর পিছিয়ে নেই। এই অঞ্চলের সব দেশের সঙ্গে সমানতালে তাল মিলিয়ে আমরা এগিয়ে যেতে পারব। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর আগেই আমরা ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলব। আমি বিশ্বাস করি, আমরা তা পারব অর্জন করতে। আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। এগিয়ে যাব। বাংলাদেশকে আমরা একটা উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলব।

আজ শনিবার জাতীয় শিশু দিবসে গোপালগঞ্জের টু্ঙ্গিগপাড়ায় শিশু সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত শিশু সমাবেশে যোগ দিয়ে শিশু কিশোরদের মধ্যে চিত্রাঙ্কনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। শিশুদের অংশগ্রহণে উপভোগ করেন সাংস্কৃতিক উপস্থাপনার।

এসময় বক্ততৃকালে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনে কথা তুলে ধরে সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান।

তিনি বলেন, আজকে আমাদের জন্য একটা সুখের সংবাদ, জাতির পিতার জন্মদিনেই এই সংবাদটি পেলাম যে, আমাদের এত দিনের প্রচেষ্টার ফলে আজকের বাংলাদেশ, যে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ ছিল, আজ সেই বাংলাদেশ আজ জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃতি পেয়েছে, উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার যে স্বপ্ন, যে আকাঙ্ক্ষা; ক্ষুধামুক্ত ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তোলা, তার একধাপ অগ্রযাত্রা অর্জন করতে আমরা সক্ষম হয়েছি। জাতির পিতার জন্মদিনে এই সুখবরটা বিরাট একটা অর্জন বলে আমি মনে করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলো যেমন, ভারত, শ্রীলংকা, এমনকি পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশ উন্নয়নশীল দেশ। আমরা একধাপ পিছিয়ে পড়েছিলাম। আজকে, আমরা খবর পেয়েছি; আমরা পিছিয়ে পড়ে নেই। এই অঞ্চলের সব দেশের সঙ্গে সমানতালে তাল মিলিয়ে আমরা এগিয়ে যেতে পারব।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশের একটি শিশুও পথশিশু থাকবে না। প্রতিটি শিশু লেখাপড়া শিখবে মানুষের মতো মানুষ হবে। বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার উপযুক্ত হবে। এদেশেই প্রতিটি দরিদ্র মানুষ ঘর পাবে, খাদ্য পাবে, চিকিৎসা পাবে, সুন্দর জীবন পাবে। এদেশেই প্রতিটি মানুষ বিশ্বসভায় মাথা উঁচু করে চলবে।’

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশকে স্বাধীন করার পর জাতির জনক যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলায় মনোনিবেশ করেন। তিনি চেয়েছিলেন উন্নত-সমৃদ্ধ স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলতে। কিন্তু মাত্র সাড়ে তিন বছর সময় পেয়েছিলেন তিনি। আরেকটু সময় পেলে এই বাংলাদেশ বহু আগেই উন্নত দেশে পরিণত হতে পারতো। কিন্তু তাকে সে সুযোগ দেওয়া হয়নি। পঁচাত্তরের সেই কালরাতে তাকে সপরিবারে হত্যা করে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা থামিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা করা হয়।

তিনি বলেন, পঁচাত্তরের পর ২১ বছর আমরা ক্ষমতায় আসতে পারিনি। ১৯৯৬ সালে সরকার গঠনের পর বিভিন্ন পদক্ষেপ নিই দেশকে এগিয়ে নিতে। ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর সেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এ দেশে একটি শিশুও পথশিশু থাকবে না। প্রতিটি শিশু লেখাপড়া করবে। সুন্দর জীবন পাবে। মাথা উঁচু করে চলবে।

এস এম সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র আরাফাত হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেয় স্থানীয় সোনাল স্বপ্না হাইস্কুলের ছাত্রী পৃয়ন্তী সাহা।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী তার ছোট ভাইয়ের নামে ‘শেখ রাসেল’ ডাক টিকিট ও বিশেষ খাম অবমুক্ত করেন। এরপর তিনি ‘আমাদের ছোট্ট রাসেল সোনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন।

এসময় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা তারিক আহমেদ সিদ্দিক, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও কাজী জাফর উল্যাহ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক ও আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য এস এম কামাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া মন্ত্রিপরিষদ সচিব, মুখ্য সচিব, তিন বাহিনী প্রধান, পুলিশের মহা পরিদর্শক, তথ্য সচিব, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় সচিব, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব, রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

স্বল্পোন্নত দেশের তালিকায় হতে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে ওঠার যোগ্যতা অর্জনের চিঠি শুক্রবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে বাংলাদেশ মিশনে এক অনুষ্ঠানে সংস্থাটিতে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধির হাতে তুলে দেন জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি) সেক্রেটারিয়েটের প্রধান রোলান্ড মোলেরাস।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি জাতিসংঘে যাওয়ায় সরকার আতঙ্কিত - ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?