মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

সোমবার, ০৪ জুন, ২০১৮, ০৫:০৪:৫৫

তাজমহলের আসল রং জানতে এবার বৈজ্ঞানিক গবেষণা!

তাজমহলের আসল রং জানতে এবার বৈজ্ঞানিক গবেষণা!

ঢাকা : ভারতের আগ্রায় অবস্থিত একটি রাজকীয় সমাধি। মুঘল সম্রাট শাহজাহান তাঁর স্ত্রী আরজুমান্দ বানু বেগম যিনি মুমতাজ মহল নামে পরিচিত, তার স্মৃতির উদ্দেশ্যে এই অপূর্ব সৌধটি নির্মাণ করেন।

সৌধটি নির্মাণ শুরু হয়েছিল ১৬৩২ খ্রিস্টাব্দে যা সম্পূর্ণ হয়েছিল প্রায় ১৬৫৩ খ্রিস্টাব্দে। সৌধটির নকশা কে করেছিলেন এ প্রশ্নে অনেক বিতর্ক থাকলেও, এ পরিষ্কার যে শিল্প-নৈপুণ্যসম্পন্ন একদল নকশাকারক ও কারিগর সৌধটি নির্মাণ করেছিলেন যারা উস্তাদ আহমেদ লাহুরীর সাথে ছিলেন, যিনি তাজমহলের মূল নকশাকারক হওয়ার প্রার্থীতায় এগিয়ে আছেন।

তাজমহলকে (কখনও শুধু তাজ নামে ডাকা হয়) মুঘল স্থাপত্যশৈলীর একটি আকর্ষণীয় নিদর্শন হিসেবে মনে করা হয়, যার নির্মাণশৈলীতে পারস্য, তুরস্ক, ভারতীয় এবং ইসলামী স্থাপত্যশিল্পের সম্মিলন ঘটানো হয়েছে। যদিও সাদা মার্বেলের গোম্বুজাকৃতি রাজকীয় সমাধীটিই বেশি সমাদৃত, তাজমহল আসলে সামগ্রিকভাবে একটি জটিল অখণ্ড স্থাপত্য।

এটি ১৯৮৩ সালে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল। বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম তাজমহল। তাজমহলের আসল রং কী, তা জানতে এবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে বৈজ্ঞানিক গবেষণার সাহায্য নেবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। দেশটির কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি ও পরিবেশমন্ত্রী মহেশ শর্মা এ কথা জানিয়েছেন।

মুঘল আমলের এই আইকনিক স্মৃতিস্তম্ভ রক্ষায় কতটা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এমবি লোকুর এবং বিচারপতি দীপক গুপ্তার ডিভিশন বেঞ্চ কেন্দ্রীয় সরকারকে রীতিমত তিরস্কার করে।

বিচারপতিরা বলেন, 'আগে তাজের রং ছিল হলুদ, এখন তা বদলে বাদামি ও সবুজ হয়ে যাচ্ছে। তাজমহল রক্ষার মতো সত্যিই বিশেষজ্ঞ দল এখানে নেই, নাকি আপনারা তাজমহল নিয়ে চিন্তিত নন? প্রয়োজনে বিদেশ থেকেও বিশেষজ্ঞ দল আনানো যেতে পারে। এক যদি না তাজমহলকে ধীরে ধীরে অবহেলা করে নষ্ট করে ফেলাই আপনাদের লক্ষ্য হয়।'

পরিবেশবিদ এমসি মেহতার আবেদনের ভিত্তিতে তীব্র তিরস্কার করে শীর্ষ আদালত। বিশ্বের অন্যতম আশ্চর্য তাজমহলের ওপর পরিবেশ দূষণের প্রভাব নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আয়োজিত একটি ওয়ার্কশপে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, 'তাজমহলের ১০০ বছরের পুরনো ছবিও রয়েছে। তার সঙ্গে নতুন ছবির ওপর বৈজ্ঞানিক গবেষণা করে এই মনুমেন্টের আসল রং নির্ণয় করা হবে।'

কালার স্টিরিওগ্রাফি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তা করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এই বৈজ্ঞানিক গবেষণার রিপোর্ট হবে ১৭ শতকের এই মনুমেন্টের আসল রং কী, তার প্রামাণ্য তথ্য।

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি জাতিসংঘে যাওয়ায় সরকার আতঙ্কিত - ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?