Prime News bd.com is about bangla newspaper, news dhaka, bangla online news, news in bangla
Print
প্রচ্ছদ » শিক্ষা
Wed, 11 Jan, 2017

সন্তানের একা স্কুলে যাওয়ার সঠিক বয়স কোনটি?

ঢাকা : সংসারে একটি নতুন মুখ নতুন হাজারো স্বপ্নের সৃষ্টি করে। শিশু পৃথিবীতে আসার আগে থেকেই বাবা-মায়ের মনে চলতে থাকে হাজারো চিন্তা। শিশুর নিরাপত্তা নিয়ে একটা উদ্বিগ্নতা ঘিরে ধরে তাদের। শিশু যত বড় হতে থাকে তত বাড়ে এই উদ্বিগ্নতা, কারণ একটু একটু করে মায়ের হাত থেকে ছুটে যেতে থাকে নিয়ন্ত্রণ।

শিশুকে স্কুলে পাঠানো থেকে শুরু হয় বড় মাত্রায় নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে দেওয়া, অনেকটা সময়ের জন্য সে থাকে পরিবারের বাইরে, বেশীরভাগ অপরিচিত মানুষের সাথে। এরপরের ধাপটি হচ্ছে শিশুকে একা স্কুলে যেতে দেওয়া।

অধিকাংশ বাবা মাকে প্রশ্ন করতে দেখা যায়, ‘শিশুকে একা স্কুলে যেতে দেওয়ার সঠিক বয়স কোনটি?' চাইল্ড প্রটেকশান এওয়ারনেসের এন এস পি সি সি এর প্রধাণ ক্রাইস ক্লক বলেন, 'বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ৮ বছরের নিচের শিশুদের একা ছাড়া ঠিক নয়। কিছু ১০ বছরের শিশুরা একা স্কুলে যেতে পারে, সবাই নয়। কারণ সব ১০ বছরের শিশু সমপরিমাণ ম্যাচিউর হয় না।’

প্রকৃতপক্ষে, একটি শিশু কখন একা চলাফেরা করতে পারবে তা নির্ভর করে অনেক পরিস্থিতির উপরে। শিশুটি কতটা দায়িত্বশীল, তার স্কুলটি কতটা দূরে, যাতায়াতের ব্যবস্থা কী, এলাকাটি কতটা নিরাপদ এই সবই বিবেচ্য বিষয়। তাই এব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিতে একটু ভাবতে হয় সমাজবিজ্ঞানীদের। পরিবেশ-পরিস্থিতি যেমন দেশে দেশে ভিন্ন, তেমন ভিন্ন প্রতিটি শিশুর ক্ষেত্রেও।

সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অভিভাবকেরা বিবেচনা করুন এই বিষয়গুলো-

১। দূরত্ব কতখানি? শিশুকে কি ব্যস্ত সড়ক পার হতে হবে?

২। আপনার সন্তানের ধরণ কেমন? সে কি নিরাপদে রাস্তা পার হতে পারে? অপরিচিত কেউ কথা বলতে চাইলে কৌশলে নিজেকে রক্ষা করতে পারে?

একা চলাচলের অনুমতি দেওয়ার ক্ষেত্রে মেনে চলুন এই পরামর্শগুলো-

১। তাকে দলবদ্ধ হয়ে স্কুলে যেতে উৎসাহ দিন। একই এলাকায় একই স্কুলে পড়ে এমন শিশুরা একসাথে যেতে পারে।

২। অন্যান্য শিশুদের বাসা চিনে রাখুন। তাদের মায়েদের সাথে যোগাযোগ রাখুন। ফোন নম্বর সংগ্রহে রাখুন।

৩। শিশুকে পথগুলো ভালভাবে চিনিয়ে দিন। রাস্তা পারাপারের নিয়ম জানান। ওভারব্রীজ আছে এমন জায়গায় অবশ্যই সেটি ব্যবহার করতে বলুন।

৪। অপরিচিত মানুষের সাথে শিশুর ব্যবহার কেমন হবে সে বিষয়ে তাকে দিক নির্দেশনা দিন।

৫। শিশুকে শেখান সময়ানুবর্তিতা। তাহলে স্কুল থেকে ফেরার পথে সময় নষ্ট করবে না সে।

৬। শিশু যদি স্কুল শেষে খেলতে যেতে চায় বা বন্ধুর বাসায় যেতে চায় তা যেন অবশ্যই আপনাকে জানায় সে ব্যাপারে তাকে উৎসাহ দিন।

৭। কাছের জায়গাগুলোতে আগে একা পাঠান। পরে দূরে যেতে দেবেন। এতে তার আত্মবিশ্বাসও বাড়বে, একইসাথে আপনিও নিশ্চিন্ত হবেন।

নিরাপত্তা একটি বড় ইস্যু। কিন্তু শিশুকে যদি আপনি একা না ছাড়েন একটি বয়সের পর তা হতে পারে ক্ষতিকর। শিশুর সঠিক বিকাশের জন্যই এটি প্রয়োজন। কারণ সর্বোপরি তাকে এই পৃথিবীর সাথে একাই লড়তে হবে।

সূত্র : হাফপোস্ট প্যারেন্টস