শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৬ জুলাই, ২০১৮, ০৮:৪১:২৮

বিএনপির সঙ্গে ‘ইচ্ছাকৃত’ দূরত্ব বাড়াবে জামায়াত

বিএনপির সঙ্গে ‘ইচ্ছাকৃত’ দূরত্ব বাড়াবে জামায়াত

ঢাকা: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠন জামায়াতে ইসলামী নানা ইস্যুকে সামনে রেখে বিএনপির সঙ্গে ‘ইচ্ছাকৃতভাবে’ দূরত্ব বাড়াতে নানা ছক আঁটছে। বিশেষ করে বিএনপি নিরপেক্ষ সরকার ও খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আন্দোলনে মাঠে নামতে চাইছে। বিএনপির বাঁচা-মরার লড়াইয়ের এ সময়কে মোক্ষম মনে করছে জামায়াত। দলটি মনে করে, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে উভয় দলের নেতাদের মধ্যে বৈঠক হবে। এ বৈঠকে জামায়াত তাদের আসনের নিশ্চয়তা চাইবে। চাহিদা অনুযায়ী, আসনের নিশ্চয়তা না পেলে বাগড়া দেবে, জোট থেকে বেরিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার হুমকিও দেবে। এসব কিছুর কলকাঠি নাড়াচ্ছেন জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান। জামায়াত ও বিএনপির ঘনিষ্ঠ সূত্রে এসব কথা জানা গেছে। সূত্রমতে, এরই অংশ হিসেবে আসন্ন সিলেট সিটি

করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি জোটের সিদ্ধান্তের বাইরে জামায়াতের মেয়রপ্রার্থী দেওয়া বড় একটি আলামত। রাজশাহী ও বরিশালে জামায়াতের প্রার্থী না থাকলেও সেখানে বিএনপি জোটের মেয়রপ্রার্থীর পক্ষে স্থানীয় নেতাদের কাজ করার কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি বলে জামায়াত ও বিএনপির ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে।

 জামায়াত সূত্র জানিয়েছে, অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জামায়াতের তৎকালীন সেক্রেটারি জেনারেল ফাঁসির দ- কার্যকর হওয়া আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে। বিগত ওয়ান-ইলেভেনের পরে আসন ভাগাভাগি ও নির্বাচনে যাওয়া না-যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে তাদের মধ্যে বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে মুজাহিদ খালেদা জিয়ার সামনে কাগজ-কলম ছুড়ে ফেলে হুমকি দিয়েছিলেন, বিএনপি না গেলেও জামায়াত নির্বাচনে যাবে। ওই নির্বাচনে খালেদা জিয়া অংশ নিতে বাধ্য হন। যদিও ওই নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে পরে বিএনপি নানা অভিযোগ তোলে। এবারও একই দিকে যাচ্ছে জামায়াত।

জামায়াতের এক কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, জোটের শীর্ষনেতা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাবন্দি, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে। বর্তমান সংকটে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের ‘দৃশ্যমান’ ঐক্য থাকলেও ভেতরে ভেতরে তারা ব্যক্তিস্বার্থ নিয়ে ব্যস্ত। এ সুযোগই নেওয়ার চেষ্টা করছে জামায়াত। ৭০টি আসনে তারা তাদের এমপি প্রার্থী চূড়ান্তও করে রেখেছে। ওই নেতা আরও বলেন, যদিও খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার আগে জামায়াত তাকে কথা দিয়েছিল, তারা তার নেতৃত্বে অটুট থাকবে।

তবে জামায়াতের ঘনিষ্ঠ সূত্র বলছে, খালেদা জিয়াকে দেওয়া কথা রাখা জামায়াতের জন্য কঠিন হয়ে যাচ্ছে। বর্তমান সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানের সঙ্গে সরকারের কোনো পর্যায়ে যোগাযোগ রয়েছে বলে জামায়াতের নেতাকর্মীরা মনে করে। তাদের হাতে প্রমাণ না থাকলেও জামায়াতের নিজস্ব বৈঠকে ডা. শফিকের বক্তব্য, গতিবিধি পুরোটাই সন্দেহজনক। যেখানে একজন কর্মী মুক্তভাবে বের হতে পারে না, সেখানে তিনি বাধাহীনভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আগে তাকে নিয়ে নেতাকর্মীরা মনে মনে সন্দেহ করলেও এখন তা প্রকাশ্যে আলোচনা হচ্ছে।

গত বুধবার সিলেট, রাজশাহী ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নিয়ে বৈঠক শেষে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘আলোচনাক্রমে সিদ্ধান্ত হয় যে, তিন সিটিতে একক প্রার্থীর পক্ষে ২০ দল সম্মিলিতভাবে সক্রিয়ভাবে কাজ করবে। প্রত্যেক সিটি করপোরেশনে ২০ দলের একজন করেই প্রার্থী থাকবে, তার পক্ষে সবাই একযোগে কাজ করবে। বৈঠকে জামায়াতে ইসলামীর প্রতিনিধি ছিলেন। তারা একমত হয়েছেন, তারা একক প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবে।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা সিলেটে যে প্রার্থী দিয়েছি (আরিফুল হক চৌধুরী), সেটাকে ২০ দল ইতোমধ্যে অনুমোদন দিয়েছে। নজরুল ইসলাম খান ও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্য প্রসঙ্গে বৈঠকে অংশ নেওয়া জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য আবদুল হালিম এক বিবৃতিতে বলেন, ২০-দলীয় জোটের বৈঠকে সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়রপ্রার্থী হিসেবে জামায়াতের অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের রয়েছেন। এতে বিভ্রান্তির কোনো অবকাশ নেই। বিএনপি নেতাদের বক্তব্যকে চ্যালেঞ্জ করে এ ধরনের বক্তব্য এটাই প্রথম। জামায়াতের এক নেতা বলেন, এ বিবৃতি আবদুল হালিম নিজে থেকে দেননি। তাকে দিতে বাধ্য করা হয়েছে। জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকের নিজ জেলা সিলেট। এ থেকে বুঝতে হবে এসব কীভাবে হচ্ছে, কে করাচ্ছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেন, জামায়াত এখন সরকার ও বিএনপি উভয় নৌকায় পা দিয়ে চলছে। বিএনপি মনে করে, সুবিধা যেদিকে পাবে, জামায়াত সেদিকে থাকবে।জোট থেকে বেরিয়ে নির্বাচনে যাওয়ার হুমকিও দিতে পারে । আমাদের সময়

এই বিভাগের আরও খবর

আজকের প্রশ্ন

বিএনপি জাতিসংঘে যাওয়ায় সরকার আতঙ্কিত - ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের এ বক্তব্য সমর্থন করেন কি?