রবিবার, ১৯ আগস্ট ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮, ০৬:২৫:২৬

১৩ আগস্ট আশরাফুলের অপেক্ষার অবসান

১৩ আগস্ট আশরাফুলের অপেক্ষার অবসান

স্পোর্টস ডেস্ক : ১৩ আগস্টের জন্য দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষায় আছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল।সেই অপেক্ষার অবসান হতে চলেছে।

আগামী সোমবার হচ্ছে সেই ১৩ আগস্ট। ওই দিন শেষ হচ্ছে মোহাম্মদ আশরাফুলের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ। আবারো জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন দেখছেন ৩৪ বছর বয়সী এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান।মোহাম্মদ আশরাফুল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ফিক্সিংয়ের অভিয়োগে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন।

এর মধ্যেই ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলছেন আশরাফুল। ঘরোয়া ক্রিকেটে দুই বছর মোটামুটি ভালোই খেলেছেন। এখন জাতীয় দল ও বিপিএলে খেলার ক্ষেত্রেও বাধা কাটল। কাঙ্ক্ষিত এই দিনটির ব্যাপারে আশরাফুল পাঁচ বছর ধরে অপেক্ষা করছেন বলে জানিয়েছেন ক্রিকইনফোকে দেয়া সাক্ষাৎকারে।

আশরাফুল বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে আমি ২০১৮ সালের ১৩ আগস্ট দিনটির জন্য অপেক্ষা করছি। যেদিন জাতীয় দলের হয়ে শেষ ম্যাচ খেলেছি এরপর থেকেই অপেক্ষার শুরু হয়েছে। তাই এই অপেক্ষার প্রহরটা পাঁচ বছর পেরিয়ে গেছে। শেষ দুটি মৌসুম ঘরোয়া ক্রিকেট খেলছি। তবে এখন জাতীয় দলে নির্বাচনের জন্য যোগ্য হওয়ার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ আমার কাছে কিছুই নয়। বাংলাদেশের জন্য পুনরায় খেলতে পারাটা হবে আমার জন্য সেরা অর্জন।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ২০১৭-১৮ মৌসুমে পাঁচটি সেঞ্চুরি করেছেন আশরাফুল। দক্ষিণ আফ্রিকার আলভিরো পিটারসেনের পর দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে এক টুর্নামেন্টে পাঁচ সেঞ্চুরি করার গৌরব অর্জন করেন তিনি। ২০১৫-১৬ সালে আলভিরো পিটারসেন দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়ানডে কাপে একই রেকর্ড গড়েছিলেন।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ২৩টি লিস্ট এ ম্যাচ খেলেছেন আশরাফুল। যেখানে তার রানের গড় ৪৭ এর উপরে। তবে প্রথম শ্রেণির ১৩ ম্যাচে রান তোলার গড় ২২ এর নিচে। সেঞ্চুরি রয়েছে মাত্র একটি। তবে আসন্ন মৌসুমে আরও ভালো করার প্রত্যাশা আশরাফুলের।

তিনি বলেন, আমি এখন পারফরমেন্স দিয়েই নির্বাচকদের বিবেচনায় আসতে চাই। এর মধ্যেই মাসব্যাপী অনুশীলনে অংশ নিয়েছি। ১৫ আগস্টের পর জাতীয় লিগের জন্য প্রাক মৌসুম অনুশীলনের কাজ শুরু করব।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে বিপিএলের দ্বিতীয় আসরে ফিক্সিংয়ে জড়ানোর অভিযোগ ওঠে আশরাফুলের বিরুদ্ধে। সেই অভিযোগে ২০১৪ সালের জুনে বিপিএল দুর্নীতি বিরোধী ট্রাইব্যুনাল তাকে ৮ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে। একইসঙ্গে জরিমানা করা হয় ১০ লাখ টাকা। বিসিবির ডিসিপ্লিনারি প্যানেল একই বছরের সেপ্টেম্বরে নিষেধাজ্ঞার পরিমাণ কমিয়ে পাঁচ বছর করে। তবে শেষ ‍দুই বছর ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলার সুযোগ দেয়া হয় তাকে।

আজকের প্রশ্ন

খুলনা সিটি নির্বাচনের ভোটকে ‘প্রহসন’ বলেছেন বিএনপি ও বামপন্থিরা। আপনি কি একমত?