শুক্রবার, ২০ জুলাই ,২০১৮

Bangla Version
  
SHARE

শুক্রবার, ০৬ জুলাই, ২০১৮, ০৩:১৪:৫৯

জাবিতে প্রাইভেটকারে ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর বয়ফ্রেন্ড!

জাবিতে প্রাইভেটকারে ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর বয়ফ্রেন্ড!

ঢাকা: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে ভরদুপুরে প্রাইভেট কারের ভেতর থেকে ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়েছেন বয়ফ্রেন্ড। পুলিশ প্রহরায় এমন অপকর্ম চলছিল বলে অভিযোগ উঠেছে।

এঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মকর্তারা অভিযুক্ত বয়ফ্রেন্ড ও পাহারারত দুই পুলিশ কর্মকর্তার নামে মামলা দিয়ে আশুলিয়া থানায় সোপর্দ করতে চাইলে বাধ সাধেন ডেপুটি রেজিস্ট্রার (এস্টেট) মো. আবুর রহমান বাবুল। তিনি অনেকটা হুমকি-ধমকি দিয়ে তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে যান। বৃহস্পতিবারের ওই ঘটনা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে তোলপাড় শুর“ হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা অফিস সূত্রে জানা যায়, ক্যাম্পাস সংলগ্ন গকুলনগর এলাকার সুরুজ মিয়ার ছেলে আকাশ মাহমুদ সাভার ক্যান্টনমেন্ট কলেজের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীর সঙ্গে বৃহস্পতিবার ক্যাম্পাসে আসেন। এসময় বিশ্ববিদ্যায়ের চৌরঙ্গী ও ভিসির বাস ভবনের মাঝের রাস্তায় প্রাইভেটকারেই তারা আপত্তিকর কর্মে লিপ্ত হন। এসময় তাদের পাহারা দিচ্ছিলেন সিভিল পোশাকে থাকা দুই পুলিশ কনস্টেবল।

প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন বলেন, টহলরত অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চৌরঙ্গীর পাশের রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা একটি প্রাইভেটকারে গোলার দৃশ্য দেখে আমার সন্দেহ হয়। পরে সেখানে গিয়ে গাড়ির পেছনের সিটে প্রেমিক যুগলকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পাই।

তখন আমি গাড়ির দরজার কাছে এসে টোকা দিয়ে দরজা খুলতে বললে পেছন থেকে দু’জন এসে আমাকে হুমকি দিতে থাকে এবং তারা পুলিশের কনস্টেবল বলে পরিচয় য়ে। তার ৫ মিনিট পর ভেতরে থাকা ছেলেটি গাড়ির রজা খুলে আমাকে ধমকের সঙ্গে ডেপুটি রেজিস্ট্রার আবুর রহমান বাবুলের আত্মীয় পরিচয় দিয়ে তাদের ছেড়ে দিতে বলে।

বাবুলের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আটকৃতদের চিনেনা বললে নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের নিরপত্তা অফিসে নিয়ে আসে এবং আশুলিয়া থানার পরামর্শক্রমে প্রেমিক ও দুই পুলিশকে থানায় সোপর্দ করার প্রস্তুতি চলে। আর মেয়েকে তার পরিবারের কাছে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

ডেপুটি রেজিস্ট্রার আবদুর রহমান বাবুল টেবিল চাপড়ে প্রধান নিরপত্তা কর্মকর্তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও বিভিন্ন ধরণের হুমকি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে মেয়ের বড় ভাই সেখানে উপস্থিত হলে বাবুল প্রেমিক ও তার পাহারারত পুলিশ পরিচয়দানকারী দু’জন ও গাড়ির ড্রাইভারকে নিরপত্তা অফিস থেকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে মো. আবদুর রহমান বাবুল বলেন, ‘আকাশ আমার প্রতিবেশি। নিরাপত্তা অফিস থেকে তাদের নিয়ে এসেছি সত্য কিন্তু ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ মিথ্যা। তাছাড়া দিনে দুপুরে কিভাবে তারা গাড়ির মধ্যে আপত্তিকর অবস্থায় থাকতে পারে?

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন

আজকের প্রশ্ন

খুলনা সিটি নির্বাচনের ভোটকে ‘প্রহসন’ বলেছেন বিএনপি ও বামপন্থিরা। আপনি কি একমত?